ঠাকরে পরিবারের প্রথম সদস্য হিসেবে মহারাষ্ট্র বিধানসভা নির্বাচন ২০১৯-এ ভোটে দাঁড়িয়েছিলেন বাল ঠাকরের নাতি তথা যুব শিবসেনা নেতা আদিত্য ঠাকরে। মুম্বইয়ের ওরলি আসন থেকে ৬৭০০০-এরও বেশি ভোটে জয়ী হয়েছেন তিনি। আর জয়ের পরদিনই ভোটারদের কড়া পরীক্ষার মুখে পড়েছেন তিনি।

সোশ্য়াল মিডিয়া ছেয়ে গিয়েছে 'আদিত্য তেরা ওয়াদা' বা 'আদিত্য তোমার প্রতিশ্রুতি' হ্যাশট্যাগওয়ালা পোস্টে। প্রত্যেক পোস্টেরই বক্তব্য তাঁর হাতে ক্ষমতা দিয়েছে মানুষ। কাজেই ভোটের আগে 'আরে বনাঞ্চল' নিয়ে তিনি যে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন, এখন তা পূর্ণ করতে হবে।

মুম্বইয়ের আরে বনাঞ্চল এলাকায় মেট্রো রেলের কারশেড তৈরির জন্য হাজার হাজার গাছ কাটা শুরু হয়েছিল। বম্বে হাইকোর্টে আবেদন করেও তা আটকাতে পারেননি পরিবেশ কর্মীরা। এরপরও মুম্বইয়ের ফুসফুস হিসেবে পরিচিত আরে বনাঞ্চল বাঁচানোর জন্য প্রতিবাদ জানিয়েছেন পরিবেশকর্মীরা। তাঁদের ২৯জনকে পুলিশ গ্রেফতারও করেছিল। পরে সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে তাদের মুক্তি দেওয়া হয়। গাছ কাটার উপর স্থগিতাদেশও জারি করা হয়।

সেই সময় আদিত্য ঠাকরে টুইট করে পরিবেশকর্মীদের পাশে দাঁড়িয়েছিলেন। বলেছিলেন পরিবেশ সংরক্ষণের পক্ষে যাঁরা তাঁদের গ্রেফতার রকরতে পারে না পুলিশ। ক্ষমতায় ফিরলে এর পিছনে যাঁরা আছেন , তাদের উচিত শিক্ষা দেওয়ারও প্রতিশ্রুতি দেন। পরিবেশ-কে রক্ষা করেই উন্নয়নের কথা বলেছিলেন তিনি। একমাস আগের সেই প্রতিশ্রুতির কথাই তরুণ আদিত্যকে ভোটে জেতার ঠিক পরের দিনই মনে করিয়ে দিলেন ভোটাররা।

বর্তমানে আদিত্যকে মুখ্যমন্ত্রী করার দাবি তুলেছে শিবসেনা। অন্তত তাঁকে উপমুখ্যমন্ত্রী করা হোক চাইছেন উদ্ধব ঠাকরে। মহারাষ্ট্রে সরকার গড়ার প্রস্তুতি চলছে। দফায় দফায় আলোচনা হচ্ছে বিজেপি ও শিবসেনার মধ্যে। এরমধ্যে আদিত্য কতটা তাঁর প্রতিশ্রুতি রক্ষা করতে পারেন, সেটাই দেখার। চ্যালেঞ্জ কিন্তু ছুড়ে দিয়েছেন ভোটাররা।