অন্যান্য আবেগের মতো রাগও একটি আবেগ। রাগ, অভিমান, আনন্দ- ইত্যাদি সব অভিব্যক্তি নিয়েই তৈরি হয় একজন মানুষ। কারওর মধ্যে রাগ বেশি, কেউ আবার খুবই ধৈর্য্যশীল প্রকৃতির হয়ে থাকেন। কিন্তু জানেন কী, জ্যোতিষ শাস্ত্র মতে, রাশি বলে দিতে পারে কোন ব্যক্তির রাগ বেশি। সুতরাং রাশি অনুযায়ী কোন রাশির মানুষের রাগ সবথেকে বেশি। 

১) তুলা- এই রাশির জাতকরা এমনিতে শান্ত-শিষ্ট স্বভাবের কিন্তু একবার এঁদের আঁতে ঘা লাগলেই এরা চরম রেগে যান। শুধু তাই নয়। চোখের সামনে কোনও অন্যায় হতে দেখলে এরা একেবারেই সহ্য করতে পারেন না। আর সেই কারণেই অন্যায়ের প্রতিবাদ করতে গিয়েও এরা রাগের বশবর্তী হন। 

২) কর্কট - এই রাশির জাতকরা প্রচণ্ডই  আবেপ্রবণ প্রকৃতির হয়ে থাকেন, আর সেই কারণে প্রচণ্ড সংবেদনশীলও হয়ে থাকেন। কিন্তু তাঁদের আবেগের প্রতি যদি কেউ আঘাত করেন বা তাঁদের সংবেদনশীলতায় আঘাত করে কোনও কথা বলেন তাহলে  তাঁরা ভীষণ উত্তেজিত হয়ে পড়েন। তখন উত্তেজনার বশে কী করবেন বুঝতে পারেন না এরা। 

৩) মিথুন -এই রাশির জাতকরা অজানাকে জানার ইচ্ছা রাখেন। নিত্য-নতুন জিনিস সম্পর্কে কৌতুহল প্রকাশ করা  যখন কোনও বিষয় নিয়ে বেশ কৈতূহলী থাকেন, সেই সময় তাঁদের কেউ বিরক্ত করলেই , এঁরা রেগে যান। এঁদের রাগ এক্কেবারে অন্য মাত্রার হয়। রাগের বশবর্তী হয়ে যে এঁরা কী করে ফেলেন এঁরা নিজেরাই বুঝতে পারেন না।

৪) সিংহ - এই রাশির জাতকদের রাগ বিষয়টি সহজাত। খুব ছোটখাটো কারণেই এরা খুব সহজেই উত্তেজিত হয়ে পড়েন। রাগের বশে মাঝে মাঝে এরা এতটাই উত্তেজিত হয়ে পড়ে যে, মাঝে মাঝে অবসাগ্রস্ত হয়ে পড়ে। 

৫) কন্যা -এই রাশির জাতকরা নিজের ভুল অন্য কেউ ধরিয়ে দেবে এটা মেনে নিতে পারেন না। এই রাশির জাতকরা এমনিতে শান্ত স্বভাবের। কিন্তু তাঁদের কোনও কাজে ভুল ধরতে কেউ  এগিয়ে এলে তাঁরা প্রচণ্ড রেগে যান। 

৬) মেষ - এই রাশির জাতকদের রাগ সাংঘাতিক। এরা সামান্য কারণেই প্রচণ্ড রেগে যান। আর সেই রাগকে নিয়ন্ত্রণ করার চেষ্টা করলেও খুব এটা সুবিধা করে উঠতে পারেন না। কোনও বিষয়ে নিজে যেটাকে ঠিক বলে মনে করেন সেটাই করেন।