অনেক সংস্কৃতির মধ্যেই জ্যোতির্বিজ্ঞানের ঘটনাকে গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। ভারতীয়, চীনা ও মায়া সভ্যতার অধিবাসীগণ মহাকাশ পর্যবেক্ষণের মাধ্যমে পার্থিব ঘটনাগুলির ভবিষ্যদ্বাণী করার জন্য এই বিষয়ের চর্চা এবং উন্নয়ন সাধন করেছিলেন। পশ্চিমে, জ্যোতিষশাস্ত্র প্রায়ই একজন ব্যক্তির ব্যক্তিত্বের ব্যাখ্যা করার জন্য এবং তার জন্মের সময় সূর্য, চন্দ্র, এবং অন্যান্য জ্যোতিষ্কগুলির অবস্থানের উপর ভিত্তি করে তার জীবনের ভবিষ্যদ্বাণী করার জন্য ব্যবহৃত হত। জ্যোতিষশাস্ত্র অতি প্রাচীন এবং এটি বিভিন্ন সময়ে পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্তে বিভিন্ন সভ্যতার মানবগোষ্ঠির দ্বারা চর্চিত, পরিবর্তিত ও পরিবর্ধিত হয়েছে। তাই কোন একটি বিশেষ সময়কে জ্যোতিষশাস্ত্রের সৃষ্টিকাল হিসেবে চিহ্নিত করা যুক্তিযুক্ত নয়।

আরও পড়ুন- খারাপ সময় আসতে চলেছে, ইঙ্গিত দেয় এই স্বপ্নগুলি

জ্যোতিষশাস্ত্র মতে, নামের প্রথম অক্ষর দিয়েই ব্যক্তি সম্পর্কে অনেক কিছু জানতে পারবেন অপনি। নামের প্রথম অক্ষর  কিছু না কিছু অর্থ বহন করে। এই একটা অক্ষর দেখে যে কোনও মানুষের সম্পর্কেই অনেক আজানা কথা বুঝে যাওয়া সম্ভব। চরিত্র মানুষের এক অমূল্য সম্পদ। যিনি চরিত্রবান তিনি সমাজে যে কোনও বিরাট সম্পদশালীর চেয়ে বেশি সম্মান পেয়ে থাকেন। চরিত্র মানুষকে দান করে স্বতন্ত্র বৈশিষ্ট্য। আজ জানবো বৃহস্পতিবার জন্ম হলে সেই জাতক বা জাতিকাদের চারিত্রিক গুণাবলী।

আরও পড়ুন- মধ্যমায় হীরের আংটি, বদলে দেবে আপনার আর্থিক ভাগ্য

বৃহস্পতিবার জন্ম হলে সেই জাতক-জাতিকারা সাধারণত বুদ্ধিজীবি জগতের অন্তর্গত হয়ে থাকেন।
এই দিনে জন্মানো জাতক-জাতিকারা বই পড়তে খুবই ভালোবাসেন, এদের প্রিয় বন্ধু হল বই।
এই দিনে জন্ম হলে এরা যেমন ভালো শ্রোতা, একইসঙ্গে এরা খুব ভালো বক্তাও।
এরা অল্পতেই মেজাজ হারিয়ে ফেলেন, আবার নিজেদের সংযতও করে নেন।
বৃহস্পতিবার জন্ম এই জাতক-জাতিকারা অতিরিক্ত কথা বলার জন্য প্রচুর সমস্যার সম্মুখীণও হন।
এই দিনে জন্ম হলে যে কোনও বিতর্কমূলক আলোচনায় অংশগ্রহণ করতে এরা খুব ভালোবাসেন।
বৃহস্পতিবারের জন্ম হলে এরা যে কোনও পরিস্থিতির সঙ্গে মানিয়ে নিয়ে কাজে সাফল্য লাভ করে থাকেন।
এরা সব সময় হাসি-খুশি থাকতেই বেশি পছন্দ করেন।