বাস্তুশাস্ত্র, এই বাস্তু শব্দটি এসেছে বস্তু থেকে। বাস্তু বলতে সব কিছুকেই বুঝায়- তা একটি স্থান হতে পারে- কিংবা একটা বাড়িও হতে পারে। ভারত উপমহাদেশে প্রায় সভ্যতার সূচনালগ্ন থেকে স্থাপত্য নির্মাণকে গুরুত্ব দেয়া হয়েছে। সভ্যতার শুরু থেকেই ভারতীও উপমহাদেশে শিল্পচর্চাকে ঊর্ধ্বে স্থান দেয়া হয়েছে। স্থাপত্যশৈলী উপবেদের অন্যতম বিষয়। স্থাপত্য উপবেদ বা স্থাপত্যশাস্ত্র চারটি উপবেদের অন্যতম। 

আরও পড়ুন- বৃহস্পতিবার জন্ম হলে, তাঁদের মধ্যে রয়েছে এই বিশেষ গুণগুলি

স্থাপত্য উপবেদ আবার অথর্ববেদ থেকে এসেছে। প্রায় ৫০০০ বছর ধরে বাস্তুবিদ্যা কালের বিরুদ্ধে নিরন্তর সংগ্রামে জয়ী হয়েছে। স্থাপত্য উপবেদ বা স্থাপত্য শাস্ত্রের সূত্রগুল পরবরতিকালে 'বাস্তুশাস্ত্র' শিরোনামে লিপিবদ্ধ হয়েছে। বৈদিক যুগে স্থাপত্য বিজ্ঞান মূলত মন্দির নির্মাণে ব্যবহৃত হত। পরবর্তীতে তা বিস্তার লাভ করে। প্রাচীন যুগে স্থপতিরা কেবল নিছক রাজমিস্ত্রির ভূমিকা পালন করতেন না, নির্মাণশৈলী ও পরিকল্পনার বিষয়টিও তদারক করতে হত তাঁদের। একইভাবে বর্তমানকালে বাস্তু গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে আমাদের দৈনন্দিন জীবনে। দৈনন্দিন জীবনে অর্থভাগ্য উন্নত রাখলে বাড়ির নির্দিষ্ট কিছু স্থানে আয়না রাখার পরামর্শ দিচ্ছে বাস্তুবিশারদরা। জেনে নেওয়া যাক ঘরের কোন কোণায় আয়না রাখলে আপনার হাতে আসবে অনেক টাকা।  

আরও পড়ুন- সাবধান,বাড়িতে এই ধরনের মূর্তি পুজো দুর্ভাগ্য ডেকে আনতে পারে

শাস্ত্র মতে, উত্তর দিকটি ধনদেবতা কুবেরের দিক।
ঘরের উত্তর দিকে দরজা-জানলা না থাকলে সেই স্থানে আয়না রাখা উচিত।
বাস্তু মতে, ঘরের পূর্বদিকে আয়না রাখলে স্বাস্থ্যের ওপর ভালো প্রভাব পড়ে।
পূর্ব দিকে আয়না রাখলে সন্তান সুখের সম্ভাবনাও বৃদ্ধি পায়।
ঘরের উত্তর কোণে যাতে আয়না রাখায় সমস্যা থাকলে পূর্বদিকে আয়না রাখা যেতে পারে।
বলা হয় পূর্বদিকে আয়না রাখলে  ধন-সম্পত্তি বৃদ্ধির সম্ভাবনা বৃদ্ধি পায়।
রান্নাঘরের সামনে আয়না রাখলে তাতেও উন্নতির যোগ থাকে।
তবে বাস্তুমতে সকালে ঘুম থেকে উঠে আয়নায় নিজের চেহারা দেখলে শরীরে প্রবেশ করতে পারে নেগেটিভ এনার্জি।