যারা হাতের রেখা দেখে নিজের ভাগ্য নিজের বিচার করেন তাদের হস্তরেখাবিদ বলা হয়। হাত দেখে ভবিষ্যৎ সম্পর্কে বিচার বা অনুমান করা শুধু হাতের রেখার উপর নির্ভর করে না। এর সঙ্গে হাত বা নখের বিভিন্ন প্রকার অংশ বা চিহ্নও গুরুত্বপূর্ণ। আবার হাতের রং বা গড়নের উপরও নির্ভর করে এই বিষয়গুলি। তবে চলুন জেনে নেওয়া যাক আপনি কী ভাবে ২০২০ সাল সম্বন্ধে নিজের ভবিষ্যৎ সম্বন্ধে আগাম কিছু অনুমান করতে পারবেন। বিশেষ কিছু চিহ্ন বা অংশের বিষয়ে রইল তথ্য-

আরও পড়ুন- আগামী বছরে কেমন হবে মেষ রাশির কর্মজীবন, জেনে নিন

বৃদ্ধ আঙ্গুলিতে যব চিহ্ন থাকলে ভাগ্যবাণ, উচ্চশিক্ষিত ও নানান বিদ্যায় পারদর্শী হন। চন্দ্রের স্থানে শিরোরেখা পৌঁছে যদি স্টার যুক্ত হয়, তখন জাতকের কল্পনা শক্তি প্রবল হয়। বুধের স্থানে স্টার চিহ্ন থাকলে সে ব্যক্তির নামে কিছু বদনাম হতে পারে। তাদের অনেকেই অবিশ্বাস করেন। আবার শনিরক্ষেত্রে ক্রশ চিহ্ন থাকা মানে সেই ব্যক্তি ধার্মিক তবে আর্থিক সমস্যা থাকবে। এছাড়া দুর্ঘটনায় মৃত্যুর ভয় থাকে। বৃহস্পতির ক্ষেত্রে ক্রশ চিহ্ন থাকলে সেই ব্যক্তি সুখী এবং সৌভাগ্যবান। রবির ক্ষেত্রে ক্রশ চিহ্ন থাকলে সেই ব্যক্তি ধর্মপরায়ন হন। তবে নানা ধরণের শারীরিক সমস্যা লেগেই থাকে। তবে একথা অবশ্যই মনে রাখতে হবে, প্রত্যেক ব্যক্তির মাত্র একের অধিক স্থানে শুভফল থাকলেও জীবনে সম্পূর্ণ সুখ হয় না। কারণ বিষয়টি পুরোটাই একটি সমীকরণ এর সাহায্যে ধারণা করা হয়। 

আরও পড়ুন- কন্যা রাশির কতটা উন্নতি হবে এই মাসে, দেখে নিন

আয়ুরেখায় যদি যব চিহ্ন থাকে তবে রোগগ্রস্ত থাকার সম্ভাবনা বেশি থাকে এবং বংশগত রোগেও আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে। মঙ্গলের স্থান উচ্চ ও বৃহস্পতির স্থানে নীচু হলে এবং স্টার চিহ্ন উভয় হাতে শনির ক্ষেত্রে থাকলে হলে গুরুতর অপরাধ করার সম্ভাবনা থাকে। বৃহস্পতির স্থানে স্টার চিহ্ন থাকলে ভাগ্য ভাল হয়। সকলের ভালবাসার মানুষ হয় এবং সম্মান প্রাপ্তির যোগ থাকে। শনির স্থানে স্টার চিহ্ন থাকলে পথ দুর্ঘটনার যোগ থাকে। আর এই স্টার চিহ্ন শনির স্থানে স্পষ্ট হয় তবে অন্যকে আক্রমণ করার প্রবণতা থাকে। শনির স্থানে যব চিহ্ন থাকলে জাতক যৌনরোগী হয়। এদের জীবনে বদনাম হওয়ার প্রচুর সম্ভাবনা থাকে। চন্দ্রের স্থানে অবস্থিত কোনও স্টার চিহ্নের সঙ্গে একটি সুখ রেখা আয়ু রেখাকে সংযুক্ত করলে সেই ব্যক্তির মূর্ছারোগ হয়।