• মেষ- এই রাশির পুরুষদের ধৈর্য একটু কমই থাকে। ব্যক্তিগত জীবনই হোক বা কর্মজীবনই হোক না কেন এরা যে কোনও কাজের চ্যালেঞ্জ নিতে পারে। এদের মধ্যে একটা প্রতিযোগী মনোভাব দেখা যায়। এরা নিজের মর্জি মতো চলতে বেশি ভালবাসেন। 
  • বৃষ- এই রাশির পুরুষরা সাধারণত নিজের সিদ্ধান্তে অনড় থাকেন। এঁদের কাজের প্রতি মনোযোগ অনেক বেশি থাকে। এই রাশির পুরুষরা খুবই শান্ত-শিষ্ট প্রকৃতির হয়ে থাকে। এরা খুবই সংসারী প্রকৃতির হয়, এরা পরিারের সকলকে নিয়ে সুখে শান্তিতে থাকতে ভালবাসে। 
  • মিথুন- এই রাশির পুরুষরা খুব ভাল বাগ্মি হয়ে থাকে। নিজের কথা দ্বারা সকলের মন জয় করে নিতে পারে এরা। আর এদের কথা শুনলেই এদের বুদ্ধিমত্তার পরিচয় পাওয়া যায়। শুধু দোষের মধ্যে এরা খুব সহজেই নিজের মেজাজ হারিয়ে ফেলে। আর এরা খুব ভুলো মনের হয়ে থাকে। 
  • কর্কট- এই রাশির পুরুষরা একটু লাজুক প্রকৃতির হয়ে থাকে। প্রাথমিকভাবে দেখতে গেলে এরা খুবই শান্ত-শিষ্ট স্বভাবের। কিন্তু আলাপের পর ধীরে ধীরে এক অন্য মানুষকে আবিষ্কার করা যায়। তবে এই রাশির পুরুষরা নিজের ইচ্ছার বিরুদ্ধে কোনও কাজ করা পছন্দ করেন না। এরা খুব সহজে নিজের কষ্ট প্রকাশ করে না। 
  • সিংহ- সিংহ রাশির পুরুষরা নিজেদের উপস্থিত জানান দিতে ভালোবাসেন। বন্ধু মহলে এদের একটা প্রভাব সর্বদাই থাকে। প্রথম থেকেই এদের মধ্যে নেতৃত্ব দেওয়ার একটা অদ্ভুত প্রবণতা দেখা দেয়। তবে এরা একটু জেদী, বদমেজাজী ও একগুঁয়ে প্রকৃতির হয়ে থাকেন। কোনও বিষয়ে অন্যের পরামর্শ নেওয়ার বদলে নিজেই সেই বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়াই ঠিক বলে মনে করে এবং এর ফলে তাঁকে অনেক সমস্যায়ও পড়তে হয়।
  • কন্যা- এই রাশির পুরুষরা কঠোর পরিশ্রমী প্রকৃতির হয়ে থাকে। যে কোনও কাজ নিখুঁত করে করতেও এদের তুলনা নেই। সামান্য খুঁটিনাটি বিষয়েও এদের পূর্ণ মনোযোগ থাকে। এই রাশির পুরুষরা অত্যন্ত ভদ্র এবং নম্র প্রকৃতির হয়ে থাকে। তবে মাঝে মধ্যে নিজের আত্মবিশ্বাস হারিয়ে ফেলেন বটে, কিন্তু তার কাজের মধ্য দিয়েই আবার সেই আত্মবিশ্বাস ফিরে পান নতুন করে।
  • তুলা- এই রাশির পুরুষরা সকলের কথা ভাবতে ভালবাসেন। এই রাশির পুরুষরা অত্যন্ত শান্তিপ্রিয় স্বভাবের। সবাইকেই খুশি রাখতে পারলেই এরা আর কিছু চায় না। এই রাশির পুরুষরা সাধারণত খুব শৌখিন প্রকৃতির হয়ে থাকেন। যেকোনও সুন্দর ও রুচিশীল জিনিসের প্রতি এরা বিশেষভাবে আগ্রহী হয়ে থাকেন। 
  • বৃশ্চিক - এই রাশির পুরুষরা অত্যন্ত মধ্যপন্থায় বিশ্বাস করেন। এরা পৃথিবীর সবকিছু শুধুই ভাল অথবা শুধুই খারাপ চোখে দেখে থাকেন। স্বাধীনচেতা, নির্ভীক, কঠোর পরিশ্রমী এবং উচ্চাকাঙ্ক্ষী এই পুরুষ সহজেই জীবনে এগিয়ে যেতে পারেন। এই রাশির পুরুষরা অত্যন্ত রাগী প্রকৃতির হয়ে থাকেন। এদের মন খারাপ হলে তা অনেকদিন পর্যন্ত মনে রাখেন।  
  • ধনু - এই রাশির পুরুষরা সাধারণত একটু দার্শনিক প্রকৃতির হয়ে থাকেন। যেকোনও বিষয়কেই তাঁরা গভীরভাবে ভাবনা-চিন্তা করতে পছন্দ করেন। এরা খুবই ভ্রমণ পিয়াসী মানুষ হয়ে থাকেন। অজানাকে জানার আগ্রহ এদের মধ্যে প্রবল। এরা খুবই পজেটিভ চিন্তাধারার মানুষ। এরা জীবনের প্রতি ক্ষেত্রে খুবই আশাবাদী প্রকৃতির হয়ে থাকে। 
  • মকর- এই রাশির পুরুষদের দেখে আপাতভাবে শান্তশিষ্ট এবং চুপচাপ মনে হোক না কেন এরা আদতে খুবই ধুরন্ধর প্রকৃতির হয়ে থাকেন। বেশিরভাগ সময়ে সাফল্য অর্জনের দিকেই মন থাকে এইসব পুরুষের। এরা ঝুঁকি নিতে পছন্দ করেন না, ঝামেলা থেকে দূরে থাকতে পছন্দ করেন।
  • কুম্ভ- এই রাশির পুরুষরা অত্যন্ত বুদ্ধিমান প্রকৃতির হয়ে থাকে। এরা খুবই সৃজনশীল প্রকৃতির হয়ে থাকেন। এই রাশির পুরুষের অনেক বন্ধু-বান্ধব থাকে তবে এরা যে খুব খোলামেলা মনের মানুষ হয়ে থাকে তা নয়। মাঝে মাঝে এদের বোঝা খুব কঠিন হয়ে যায়। 
  • মীন- এই পুরুষের মধ্যে অন্যান্য রাশির বৈশিষ্ট্যের মিশ্রণ দেখা যায়। এই রাশির মানুষরা আত্মিক চিন্তাভাবনা করে থাকেন প্রায়শই। সাধারণত শিল্প-সাহিত্য এবং সৃজনশীলতার ক্ষেত্রে অন্যান্য রাশির চাইতে মীন পুরুষরা বেশি সাফল্য অর্জন করেন।