হিন্দু ধর্মে বেশকিছু রীতিনীতি রয়েছে, যা সারা দেশ জুড়েই প্রচলিত। এর মধ্যে কালো সুতো বাধার পরম্পরা যুগ যুগ ধরে চলে আসছে। মনে করা হয়, কালো সুতো নজর দোষ থেকে বাঁচাতে পারে। তাই শিশুর কোমরে, হাতে বা পায়ে কালো সুতো বেঁধে দেওয়ার রীতি রয়েছে। 

এছাড়াও মনে করা হয় যে, যদি কোনও ব্যক্তির কু-দৃষ্টি অর্থাৎ খারাপ নজর কারওর পরিবারের ওপর পরে তাহলে কালো সুতো পরিবারের ওপর থেকে যাবতীয় নেতিবাচক শক্তিকে ইতিবাচক শক্তিতে পরিণত করতে পারে। এবং বলা হয় যে, এই কালো সুতোর মধ্যেকার শক্তি পরিবারের ওপরে আসা যাবতীয় সংকট মোচন করতে সাহায্য করে। আজকাল অনেকে আবার, এই কালো সুতোকে গলায় লকেট হিসেবে পরে থাকেন।   

তবে আপনি যদি আজকের এই সরল উপায় মেনে চলেন, তাহলে খারাপ লোকের কুদৃষ্টি থেকে তো বাঁচবেনই, সেই সঙ্গে প্রকট হবে অর্থযোগও। এরজন্য নজর সুরক্ষা হিসাবে যে কালো সুতো ব্যবহার করেন, সেই সুতোই শনি বা মঙ্গলবার এই কালো দড়িটিকে কোনও হনুমানজীর মন্দিরে নিয়ে গিয়ে ছোট ছোট গিট দিয়ে সেই দড়িটিতে হনুমানজির পায়ের সিদুর লাগিয়ে নিন। 

দড়িটির শুদ্ধিকরণ-এর পর এটিকে আপনার ঘরের মুখ্য দরজায় বেধে দিন। এই উপায়টি অবলম্বন করার পর আপনার গৃহে কোনও ধনের অভাব হবে না এবং আপনার সংসার হয়ে উঠবে সুখময়।শুধু এই নয়, এই দড়ি বাধার পর আপনার পরিবারের জন্য আসতে পারে সুখবরও এবং আপনার পরিবারের উপর কেউ কখনও খারাপ দৃষ্টি ফেলতে পারবে না।