সূর্যগ্রহণকে ভারতীয় জ্যোতিষশাস্ত্রে একটি অনন্য ঘটনা হিসাবে বিবেচনা করা হয়। যদিও বিজ্ঞান এটিকে একটি ক্ষুদ্র জ্যোতির্বিজ্ঞানীয় ঘটনা হিসাবে বিবেচনা করে। এই বছর, ২০২০ সালের প্রথম সূর্যগ্রহণ ২১ জুন রবিবার হবে। ভারতীয় সময় অনুসারে, এই সূর্যগ্রহণ সকাল ৯ টা বেজে ১৫ মিনিট থেকে শুরু হয়ে বেলা ৩টা বেজে ০৪ মিনিট অবধি থাকবে। এর জন্য সূচণা হবে ২০ জুন শনিবার রাত ৯ টা বেজে ১৬ থেকে। এই সূর্যগ্রহণের সময়, এমন গ্রহ এবং নক্ষত্রের যোগ হতে চলেছে যা গত ৫০০ বছরে তৈরি হয়নি। এটি এই বছরের দীর্ঘতম সূর্যগ্রহণ হবে।

এই দিনে, আরও একটি জ্যোতির্বিদ্যা সংক্রান্ত ঘটনা ঘটতে চলেছে সূর্যগ্রহণের সঙ্গে, যেখানে সূর্য কর্কট রাশির উপরে থাকবে। এটি ২১ জুন ঘটে যাওয়া শতাব্দীর দ্বিতীয় সূর্যগ্রহণ। এই সূর্যগ্রহণের আগে ২১ জুন ২০০১ সালে হয়েছিল। তা ছাড়া এই সূর্যগ্রহণ রাহুর সঙ্গে সম্পর্কিত। মিথুন রাশিতে রাহু সূর্য ও চন্দ্রে যোগ তৈরি করছে। অন্যদিকে, মঙ্গল রাশিতে এবং মিথুন রাশির গ্রহগুলির দিকে লক্ষ্য রয়েছে। এর সঙ্গে, বুধ, বৃহস্পতি, শুক্র এবং শনি এই দিনটিতে ৬ গ্রহ- রাহু এবং কেতু দিয়ে প্রতিশোধ নেবে। এই ৬ টি গ্রহের অবস্থানের কারণে এই সূর্যগ্রহণ আরও বিশেষ হয়ে উঠেছে।

সূর্যগ্রহণের ফলে এই যোগ কাকতালীয় ভাবে সৃষ্টি হয়েছিল ৫০০ বছর আগে। এই বছরে আবার একই যোগ তৈরি হয়েছে। এই সময় গ্রহের অবস্থান রাশিচক্রের উপর বিভিন্ন ভাবে প্রভাব তৈরি করছে। সূর্যের গ্রহণের প্রভাবে অন্ধকার এর ফলে পড়তে পারে খারাপ প্রভাব। এই সূর্যগ্রহণের সময়, মঙ্গল মীন রাশিতে অবস্থান করবে এবং মিথুনের উপর মঙ্গলের দৃষ্টি থাকবে। সুতরাং, এই সূর্যগ্রহণ মিথুন রাশির লোকদের পক্ষে অশুভ প্রভাব ফেলতে পারে। এ ছাড়া এই সূর্যগ্রহণ কর্কট, কুম্ভ এবং বৃশ্চিক রাশির জাতকদের পক্ষেও অশুভ হবে। এই অশুভ প্রভাব এড়াতে এই রাশির জাতক জাতিকাদের গণপতি পুজো করা উচিত। মহামৃত্যুঞ্জ মন্ত্রটি জপ করলে ভাল হবে।

এই সূর্যগ্রহণের ফলে মেষ, সিংহ, কন্যা, মকর এবং মীন তুলনামূলকভাবে সবচেয়ে সুপ্রসন্ন হিতৈষী এবং চমৎকার ফলাফল পেতে চলেছে। পাশাপাশি এই গ্রহণের ফলে মাঝারি প্রভাব থাকবে বৃষ, তুলা, ধনু রাশির জাতকদের উপর। তাদের উভয়ই শুভ এবং অশুভ এবং মঙ্গল-অমঙ্গল প্রভাব রয়েছে।