বুধবার, ২২ এপ্রিল বছরের প্রথম অমাবস্যা। একে সত্যুভাই অমাবাস্যও বলা হয়।  বুধবার ও বৃহস্পতিবার এই অমাবস্যার যোগ রয়েছে। শুক্লপক্ষ এবং কৃষ্ণপক্ষ এক মাসের দুটি অংশ রয়েছে। শুক্লপক্ষে চন্দ্রের শিল্পকলা বৃদ্ধি পায় অর্থাৎ চন্দ্র বৃদ্ধি পায়। কৃষ্ণপক্ষের চন্দ্র বক্ররেখা এবং অমাবস্যায় সম্পূর্ণ অদৃশ্য হয়ে যায়। চাঁদের ষোলটি কলার মধ্যে ষোড়শ শিল্পকে অমা বলা হয়। তাই এই তিথি অমাবস্যা নামে পরিচিত।

আরও পড়ুন- বাস্তুশাস্ত্র মতে ঘরের কোন দিকে কোন দেবতার বাস, জেনে নিন

স্কন্দ পুরাণ অনুসারে,  'আমা শোভাগইন দেবী প্রক্ত মহাকাল। সংস্থিতা পরমা মায়া দেহিনাম দেহধারিনী।' এই শ্লোক অনুসারে, আমা চাঁদ দ্বারা উপাসনা করা হয়, এটি চাঁদের সমস্ত ষোলো কলার শক্তি অন্তর্ভুক্ত করে। এই শিল্প ক্ষয় এবং উত্থান হয় না। জ্যোতিষশাস্ত্র মত, যখন সূর্য ও চাঁদ কোনও কোনও রাশিতে থাকে, তখন অমাবস্যা তিথি থেকে যায়। 

আরও পড়ুন- মানসিক শান্তি ফেরাতে পারবেন বৈশাখ মাসেই, রাশি অনুযায়ী জেনে নিন প্রতিকার

২২ এপ্রিল বুধবার, সূর্য ও চাঁদ মেষ রাশিতে থাকবে। অমাবস্যা তিথির কর্তা পিতৃদেব বলে বিশ্বাস করা হয়। সুতরাং, অমাবস্যায় পিতৃগণের সিদ্ধির জন্য তর্পণ, শ্রদ্ধা কর্ম ও দান করা গুরুত্বপূর্ণ। অমাবস্যায় পবিত্র নদীতে স্নান করলে পুণ্যলাভের সম্ভাবনা। তবে বর্তমানে লকডাউনের থাকায় তা সম্ভব নয়। এই দিনে মন্ত্র জপ, তপস্যা এবং উপোস রাখার রীতি রয়েছে। এই বছর করোন ভাইরাসজনিত কারণে দেশে একটি লকডাউন রয়েছে, এর কারণে পবিত্র নদীতে স্নান না করে আপনার বাড়িতে স্নান করুন এবং দুঃস্থদের খাদ্যশস্য দান করুন।