ভাদ্র বাংলার পঞ্চম মাস। বাংলা সনের পঞ্চম মাস এবং ভারতীয় রাষ্ট্রীয় শকাব্দের নবম মাস। শরতের শুরু এই মাসে। নামটি এসেছে ভদ্রা নক্ষত্রে সূর্যের অবস্থান থেকে। এই সময় এক অন্য সাজে সেজে ওঠে প্রকৃতি। কারণ এই সময় থেকেই প্রকৃতি জানান দেয় উমা আসছে। পাশাপাশি রাশিচক্রের রাশিচক্রের নবম রাশি ধনু। এই রাশির অধিকর্তা গ্রহ হল বৃহস্পতি। এই রাশির জাতক-জাতিকাদের বিষয় সম্পত্তিতে আসক্তি কম। এদের জীবনের প্রথম দিকে প্রচুর বাধা বিপত্তি আসলেও তা কেটে যায়। এই রাশির প্রায়ই অর্থাভাব দেখা যায়। এরা খুবই ব্যক্তিত্বসম্পন্ন। তাই অন্যের অধীনে কাজ করতে অসুবিধে ভোগ করতে হয়। তবে জেনে নেওয়া যাক ভাদ্র মাস ধনু রাশির উপর কেমন প্রভাব ফেলবে-

ভাদ্র মাসে ধনু রাশি কাজের চাপে মাসের শেষের দিকে অসুস্থ হতে পারে। আইনি বিষয়ে যুক্ত থাকলে সাফল্য পাবেন। সন্তানের কোনও কাজের জন্য অবাক হতে পারেন। মাসের মাঝামাঝি সময়ে মানসিক চাপ বাড়তে পারে। বিদেশে থাকা কোনও বন্ধুর খবর পেতে পারেন। বিদ্যার্থীদের জন্য এই মাস অত্যন্ত শুভ। ব্য়বসায় মূলধনের বিষয়ে সমস্যা বৃদ্ধি পেতে পারে। কারও উপকার করতে গিয়ে বদনাম হতে পারে। বেকারদের কাজের সুযোগ বৃদ্ধি পেতে পারে। গুরুজনদের সঙ্গে কোনও কারণে বিবাদ হতে পারে। রাস্তাঘাটে সাবধানে যাতায়াত করুন রক্তপাতের যোগ আছে। ভোগবিলাসের জন্য খরচ বৃদ্ধি পেতে পারে। সঙ্গীর জন্য কোনও বিপদ থেকে উদ্ধার পেতে পারেন। এই মাসে কোনও ভুলের জন্য মন কষ্ট পাবেন। 

জাতকের জন্মসময়, তারিখ এবং জন্মস্থানের ভিত্তিতে, জন্মকালে মহাকাশে গ্রহের অবস্থান নিরুপণ করে অথবা প্রশ্নের সময় গ্রহাদির অবস্থান নির্ণয় করে, অথবা হস্তরেখাবিচার, শরীরের চিহ্নবিচার ইত্যাদি বিভিন্ন পদ্ধতির ব্যবহারে প্রশ্নকর্তার ভবিষ্যতের গতিপ্রকৃতি নির্ধারণ করার জ্ঞান ও পদ্ধতিকে জ্যোতিষশাস্ত্র বলা হয়। আবার জ্যোতিষশাস্ত্রের একটি বিভাগ দেশ, রাজ্য, শহর, গ্রাম ইত্যাদির এবং প্রাকৃতিক ঘটনাবলীর যেমন বৃষ্টি, অতিবৃষ্টি, অনাবৃষ্টি, ভূমিকম্প, ঝড়, ঝঞ্ঝা, মহামারী বা প্লাবণের ভবিষ্যদ্বাণী করতেও ব্যবহৃত হয়।