ভাগ্য বদলানোর জন্য অনেকেই জ্যোতিষীর সঙ্গে পরামর্শ করেন। কখনও আংটি বা কখনও মাদুলি ধারণ করে দুঃসময় কাটিয়ে সৌভাগ্য ফিরিয়ে আনতে চান। তবে জানেন কী, ভারতীয় জ্যোতিষ শাস্ত্র অনুসারে, এমন কিছু গাছ রয়েছে যা ঘরে রাখলে আপনি সৌভাগ্যের অধিকারী হবেনই। তবে এই গাছগুলো শুধু রাখলেই হবে না,নিয়মিত করতে হবে এর পরিচর্যাও। তবে জেনে নেওয়া যাক কোন গাছগুলি আপনার সৌভাগ্য ফিরিয়ে আনতে পারে।

আরও পড়ুন- অশান্তি বা সমস্যা বাড়ির নিত্য সঙ্গী হলে, মেনে চলুন বাস্তুর এই নিয়মগুলি

বাস্তুতন্ত্র মতে মানি প্ল্যান্ট সৌভাগ্যদায়ী একটি গাছ ৷ অনেকেই ঘরের সৌন্দর্য বৃদ্ধির জন্য এই গাছ রাখেন। এই গাছ ঘরে রাখলে পজেটিভ এনার্জি বৃদ্ধি পায় আর নেগেটিভ এনার্জি দূর হয়ে। সৌভাগ্যকে দীর্ঘস্থায়ী করে এই গাছ।  অনেকের বাড়ির  চারপাতা বিশিষ্ট ক্লোভার দেখা যায়। এই গাছও একটি সৌভাগ্যদায়ী গুল্ম। অনেকেই মনে করেন ভাগ্যক্রমে এই গাছের দেখা পেলে আপনার সেই দিনটি ভাল যাবেই।  জেড প্ল্যান্টও, এক প্রকার পাতাবাহার গাছ। বাস্তু মতে, এই গাছও সৌভাগ্যকে দীর্ঘস্থায়ী করে। নতুন ব্য়বসায় হোক বা নতুন কোনও পদক্ষেপ এই গাছ সেক্ষেত্রে অত্যন্ত মঙ্গলজনক বলে মনে করা হয়।    

আরও পড়ুন- বৈশাখী অমাবস্যার নির্দিষ্ট সময়, জেনে নিন ব্রতের পালনের নিয়মও

এই তালিকায় সর্বপ্রথমে রয়েছে চাইনিজ ব্যাম্বু বা চাইনিজ বাঁশ গাছ। যা যে কোনও নার্সারিতে সহজেই পাওয়া যাবে। এই গাছের উৎপত্তি প্রাচীন চিনে। চিনদেশে ফেংশুই হিসেবে এই গাছ ঘরে রাখা হয়। কথিত আছে, এই গাছ পরিবারের সদস্যদের এক ভালবাসার বন্ধনে বেঁধে রাখতে সাহায্য করে।  বিজ্ঞানসম্মত ভাবে এটি প্রমাণিত যে পাতাবাহার স্নেক প্ল্যান্ট বাতাসের বিষাক্ত গ্যাস শোষণ করে নেয়। শাস্ত্র মতে মনে করা হয় এই গাছ সৌভাগ্যের প্রতীক। তাই স্বাস্থ্য ও সৌভাগ্য দুই ভালো রাখতে বাড়িতে এই গাছ রাখতেই পারেন। বনসাই করা বট গাছ বাড়ির এমন জায়গায় রাখুন যেখানে পর্যাপ্ত আলো বাতাস রয়েছে। এই গাছ সমৃদ্ধি আনে সংসারে। হিন্দুশাস্ত্র মতে, প্রতি হিন্দু বসত ভিটেয় তুলসী গাছ থাকা উচিত। এখনও অনেক বাড়িতেই প্রতি সন্ধেতে প্রদীপ দেওয়ার রেওয়াজ আছে। শাস্ত্র মতে এই গাছও সৌভাগ্যের অধিকারী।