২৩ অগাষ্ট পালিত হচ্ছে পঞ্চমী ও স্কন্দ ষষ্ঠীর উত্সব। এই উত্সব পালিত হয় গণেশ চতুর্থীর ঠিক পরের দিন। একদিকে, যেমন গণেশ চতুর্থীর জন্য গোটা দেশে ভগবান শ্রী গনেশের জন্মবার্ষিকী পালন করা হচ্ছে, এই উত্সব চতুর্দশী পর্যন্ত ১০ দিন ধরে পালিত হবে। অন্যদিকে, মহিলারা এই দিনে স্কন্দ ষষ্ঠীর উপবাস পালন করে গণেশের বড় ভাই কার্তিক্যের পুজো করেন। শুক্লপক্ষের ষষ্ঠী তিথিতে স্কন্দ ষষ্ঠীর ব্রত পালন করা হয়।

আরও পড়ুন- এই দিনে ব্রত পালনে দূর হয় অর্থের ঘাটতি, জেনে নিন এই তিথি বিশেষ তাৎপর্য

পঞ্চমী তিথি এবং ষষ্ঠী তিথি একই দিনে পড়লে স্কন্দ ষষ্ঠীর উপবাস পালন করা হয়। এই উপবাসে মহিলারা শিব ও দেবী পার্বতীর জ্যেষ্ঠ পুত্র কার্তিক্যের পুজো করেন। শাস্ত্রমতে বিশ্বাস করা হয় যে, স্কন্দ ষষ্ঠীর উপবাস পালন এবং ভগবান কার্তিক্যের পুজো করার মাধ্যমে নিঃসন্তান মহিলারা সন্তান লাভ করেন, বাড়িতে সুখ শান্তি ও সমৃদ্ধি বৃদ্ধি পায়।  ভগবান কার্তিকেয় এই পুজোয় জীবনের সমস্ত ধরণের বাধা দূর হয়।

আরও পড়ুন- বিশেষ এই দিনে সপ্তঋষির ব্রত, মুক্তি দেয় সমস্ত পাপ থেকে

এটা বিশ্বাস করা হয় যে কার্তিকে দেবতা রূপে পুজো করলে গৌরব ও সমৃদ্ধি  লাভ হয়। জীবন নিরাময় হয় মূলত দক্ষিণ ভারতে স্কন্দ ষষ্ঠীর উত্সব উদযাপিত হয়। কার্তিকেয় দক্ষিণ ভারতে ভগবান সুব্রহ্মণ্যম নামেও পরিচিত। জ্যোতিষ অনুসারে, ষষ্ঠী তিথি এবং মঙ্গল গ্রহের কর্তা ভগবান কার্তিকেয়। এবং তারা দক্ষিণ দিকে বাস। এ জন্য, যাদের জাতক জাতিকার মঙ্গল বা নিম্ন মঙ্গল রয়েছে, তাদের মঙ্গলকে শক্তিশালী করতে এবং মঙ্গল গ্রহের শুভ ফল লাভের জন্য ভগবান কার্তিকের পুজো করা উচিত।