বাস্তুশাস্ত্র শব্দটি এসেছে বস্তু থেকে। বাস্তু বলতে সব কিছুকেই বুঝায়- তা একটি স্থান হতে পারে- কিংবা একটা বাড়িও হতে পারে। ভারত উপমহাদেশে প্রায় সভ্যতার সূচনালগ্ন থেকে স্থাপত্য নির্মাণকে গুরুত্ব দেয়া হয়েছে। সভ্যতার শুরু থেকেই ভারতীও উপমহাদেশে শিল্পচর্চাকে ঊর্ধ্বে স্থান দেয়া হয়েছে। স্থাপত্যশৈলী উপবেদের অন্যতম বিষয়। স্থাপত্য উপবেদ বা স্থাপত্যশাস্ত্র চারটি উপবেদের অন্যতম। প্রায় ৫০০০ বছর ধরে বাস্তুবিদ্যা কালের বিরুদ্ধে নিরন্তর সংগ্রামে জয়ী হয়েছে। স্থাপত্য উপবেদ বা স্থাপত্য শাস্ত্রের সূত্রগুলো পরবর্তীকালে 'বাস্তুশাস্ত্র' শিরোনামে লিপিবদ্ধ হয়েছে। পরবর্তীতে তা বিস্তার লাভ করে। প্রাচীন যুগে স্থপতিরা কেবল নিছক তৈরির কাজ করতেন না, নির্মাণশৈলী ও পরিকল্পনার বিষয়টিও তদারক করতে হত তাঁদের। 

আরও পড়ুন- কুম্ভ রাশির উপর কেমন প্রভাব থাকবে এই মাসে, দেখে নিন

জীবনে বাস্তুশাস্ত্রের গুরুত্ব অপরিসীম। বাস্তু না মানলে জীবনে নানা অশুভ প্রভাব ঘটতে পারে বলে মনে করেন বাস্তুবিশারদরা। তবে অনেক ক্ষেত্রে দেখা যায় বাস্তু মেনে বাড়ি বানিয়েও দেখা যায় জীবন সমস্যা সংকুল হয়ে উঠছে। তখন মনে প্রশ্ন জাগতেই পারে যে বাস্তুশাস্ত্র মেনে চলা সত্ত্বেও কেন জীবন অসহনীয় হয়ে উঠছে কেন? এর কারণ হল প্রতিদিনের কাজে আমরা অজান্তেই এমন কিছু কাজ করে ফেলি যার কুপ্রভাব পড়ে আমাদের জীবনে। জেনে নেওয়া যাক তার কিছু উদাহরণ-

আরও পড়ুন- বুধবার সারাদিন কেমন কাটবে আপনার, দেখে নিন আজকের রাশিফল

ঘরে কখনোই মাকড়সার জাল বা ঝুল জমতে দেওয়া যাবে না।  এতে ঘরে রাহুর প্রকোপ বৃদ্ধি পায়। ফলে বাড়িতে প্রতিনিয়ত নানান জটিলতা ও সমস্যা বৃদ্ধি পেতে থাকে। তাই রাহুর প্রকোপ ঘরে কমাতে ঘর পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখুন।

ঘরে কখনোই কোনও বিমের নীচে শোয়ার ব্যবস্থা করবেন না। যদি একান্তই কোনও ব্যবস্থা করা না যায় তবে বিমের গায়ে বাঁশি অথবা ময়ূরের পালক আটকে দিন। বিমের নীচে শোওয়ার ব্যবস্থা করলে। বাড়ির সদস্যদের মধ্যে অশান্তি বৃদ্ধি পেতে থাকে। তাই এই সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে ব্যবস্থা নিন আজই।

বাড়িতে ঠাকুর ঘরে বা যে ঘরে পুজো করেন সেই স্থানে একই ঠাকুরের একের বেশি ছবি রাখবেন না। যদি কোনও ঠাকুরের ছবি বা মূর্তি একের অধিক থাকে তবে তা অন্য ঘরে বা অন্য স্থানে রাখার ব্যবস্থা করুন। এর ফলে বাড়িতে নেগেটিভ শক্তি বৃদ্ধি পায়। তাই আজই ঘরে একের বেশি ঠাকুরের ছবি থাকতে তা অন্যত্র সরিয়ে ফেলুন।