জ্যোতিষীদের কথা মেনে আমরা অনেকেই রত্ন ধারণ করে থাকি। অথচ অনেক ক্ষেত্রেই দেখা যায় সঠিক রত্ন ধাপণ করলেও কোনও কার্যসিদ্ধি হচ্ছে না। তখন আমরা জ্যোতিষী বা জ্যোতিষশাস্ত্রকেই অবিশ্বাস করতে শুরু করি। আপনি জানবেন কী করে যে রত্নটি আপনি ধারণ করেছেন তা একেবারে খাঁটি। এমনও তো হতে পারে নকল রত্ন কেনার জন্যই আপনার কোনও সমস্যারই সমাধান হচ্ছে না। তাই যে কোনও রত্ন কেনার আগে তা খাঁটি না কৃত্তিম তা অবশ্যই যাচাই করে নিন। জেনে নিন কীভাবে চিনবেন খাঁটি রক্ত প্রবাল।

আরও পড়ুন- এই মাস কেমন প্রভাব ফেলবে কন্যা রাশির উপর, দেখে নিন

আরও পড়ুন- বুধবারের সারাদিন কেমন কাটবে, দেখে নিন আজকের রাশিফল

রক্ত প্রবাল বা লাল পলা এর নাম অনেক। অনেকেই বলেন রেড কোরাল অথবা মুঙ্গা পাথর। জ্যোতিষশাস্ত্র মতে, মঙ্গল গ্রহের সমস্যা থাকলে এই পাথর ধারণ করার পরামর্শ দেন জ্যোতিষীরা। রাশি অনুযায়ী মেশ, কর্কট এবং বৃশ্চিক রাশির জন্য প্রধান রত্ন হল এই রক্ত প্রবাল। জাপান ও ইতালিতে সবচেয়ে উত্কৃষ্ট মানের লাল প্রবাল পাওয়া যায়। এর মধ্যেও জাপান থেকে যে লাল প্রবাল পাওয়া যায় তার মান সর্বশ্রেষ্ঠ হয় তাই এই লাল প্রবালের দামও খুব বেশি। বেশির ভাগ দোকানে যে প্রবাল পাওয়া যায় তার ইতালীয় প্রবাল ।

আরও পড়ুন- এই মাসে সম্পত্তি প্রাপ্তির যোগ রয়েছে এই রাশিগুলির, দেখে নিন সেই তালিকা

তুলোর মধ্যে একটি লাল প্রবাল নিয়ে সুর্যের আলোয় তিন-চার ঘণ্টা রেখে দিলে খাঁটিত প্রবাল হলে তুলোতে আগুন লেগে যাবে। রক্ত প্রবাল যদি খাঁটি হয় তবে তা খাঁটি গরুর দুধে তিন থেকে চার ঘন্টা ডুবিয়ে রাখলে দুধ লাল বর্ন ধারণ করে। রক্তের মধ্যে লাল প্রবাল রেখে দিলে কিছু সময়ের মধ্যেই তা জমাট বেঁধে যায়। কাঁচা হলুদ দিয়ে প্রবালের উপর দাগ দিলে যদি দাগের রং এর পরিবর্তন হয় তবে বুঝতে হবে রত্নটি নকল। আর যদি দাগের রং এর কোনও পরিবর্তন না হয় তবে বুঝতে হবে রত্নটি খাঁটি।