চাণক্য একজন মহান পণ্ডিতের পাশাপাশি দক্ষ অর্থনীতিবিদ এবং যোগ্য শিক্ষক ছিলেন। চাণক্য তাঁর চাণক্য নীতিতে এ জাতীয় বিষয় উল্লেখ করেছেন, সেগুলি জেনে এবং প্রয়োগ করে জীবনে সাফল্যের সম্ভাবনা বাড়ে। চাণক্যের এই জিনিসগুলিকে জাগ্রত করে চাকরি ও ব্যবসায়ের মতো ক্ষেত্রেও সাফল্য লাভের মূল মন্ত্র হিসেবে বিবেচনা করা হয়।

চাণক্য নীতি অনুযায়ী, কোনও ব্যক্তি যে কোনও কাজ করার আগে সেই কর্মের একটি পরিকল্পনা করা উচিত। কারণ কাজের পরিকল্পনা না করে কাজ করলে, সাফল্য তার থেকে অনেক দূরে থাকে। সাফল্যের প্রথম শর্তটি একটি সঠিক পরিকল্পনা তৈরি করা। পরিকল্পনাটি তৈরির পরে কেবল সম্পূর্ণ পরিশ্রম এবং সততার সঙ্গে নিয়মিত সেই পদ্ধতিতে কাজটি করা উচিত। তাই তিনি জানিয়েছিলেন সাফল্য লাভের ৩ মন্ত্র।

১) সাফল্যের সবচেয়ে বড় বাধা অলসতা। চাকরি ও ব্যবসায় সাফল্যের জন্য অলসতা এড়িয়ে চলা উচিত। চাণক্যের মতে, অলসতা কাজ এড়ানোর প্রবণতা তৈরি করে। যা যে কোনও কাজের সাফল্যে বাধা দেয়। অতএব, অলসতাকে কখনই প্রাধান্য পেতে দেওয়া উচিত নয়।

২) চাণক্য নীতি অনুসারে, কর্মে সাফল্য তখনই অর্জিত হয় যখন ব্যক্তি কঠোর শৃঙ্খলা অনুসরণ করে। চাকরি ও ব্যবসায় সাফল্য শৃঙ্খলার উপর নির্ভর করে আসে। যারা সময় মতো তাঁদের কাজ এবং দায়িত্ব সম্পন্ন করেন তারাই সাফল্য লাভ করেন।

৩) চাণক্য নীতি অনুসারে বড় বড় কাজ করার জন্য সঙ্গী প্রয়োজন। সঙ্গী ছাড়া কোনও বড় কাজ করা যায় না। তাই সর্বদা যোগ্য এবং অনুগত সহকর্মীদের উত্সাহিত করুন এবং তাদের আরও ভাল করার জন্য উদ্বুদ্ধ করুন।