সামান্য ঝগড়া থেকে সম্পর্কে অবনতি, আর সেই থেকে শেষমেশ আদালতের দোরগড়ায় গিয়ে শেষ হচ্ছে সম্পর্ক। সম্পর্কে সমস্যার সৃষ্টি হলে ধৈর্য এবং শান্ত মেজাজ ধরে রাখাটাই সবচাইতে গুরুত্বপূর্ণ। আর তা করতে পারলে দাম্পত্য সমস্যার মীমাংসা করে ফেলতে পারবেন সহজেই।
তবে খেয়াল রাখতে হবে, আপনি কী বলছেন এবং কীভাবে বলছেন সেটা বেশি গুরুত্বপূর্ণ। তবে জ্যোতিষশাস্ত্র মতে  বিবাহিত জীবনে অশান্তির মূল কারণ হিসেবে দায়ী করা হয় মঙ্গল গ্রহকে। মঙ্গল যদি দুষ্ট গ্রহের সঙ্গে সংযুক্ত হয় অথবা এর অবস্থান গত সমস্যা থাকে তাহলে বিবাহিত জীবনে সুখ খুবই সাময়িক। সম্পর্ক টিকিয়ে রাখাটাই সমস্যা হয়ে দাঁড়ায়। 
তাই এই সমস্যার হাত থেকে মুক্তির জন্য জ্যোতিষশাস্ত্র জানিয়েছে কিছু সহজ নিয়ম। এই নিয়মগুলি মেনে চললে এই সমস্যার হাত থেকে মুক্তি পেতে পারেন। জেনে নিন সেই নিয়মগুলি।
বাড়ির সদর দরজায় ওপরে পঞ্চমুখী হনুমান-এর মূর্তি অথবা ছবি রাখুন। সকাল ও সন্ধ্যেয় ধূপ-বাতি দেখিয়ে পূজো দিন। এতে বাড়ির সমস্ত রকমের নেগেটিভ এনার্জি দূর হতে সাহায্য করে।
বাড়ির শোয়ার ঘরটি  সব সময় দক্ষিণ-পশ্চিম কোণে রাখার চেষ্টা করুন এবং বেডরুমে অবশ্যই হাঁসের ছবি বা বাস্তু নিময় মেনে নেগেটিভ এনার্জি দূরীভূত হয় এমন কোনও ছবি রাখুন।
বাড়িতে যদি কোনও রকমের বাস্তু দোষ থাকে তাহলে সংস্কার করান, এর ফলে দাম্পত্য জীবনের সমস্যা দূর হয়ে সংসারে শান্তি ফিরে আসবে।
পাত্র অথবা পাত্রীর যদি মঙ্গলদোষ থাকে তাহলে তা খণ্ডন বিয়ের আগেই দোষ কাটিয়ে নিয়ে তারপরেই বিয়ে দেওয়া উচিৎ।
এই সমস্ত সমস্যা এড়িয়ে চলার জন্য বিয়ের আগেই পাত্র-পাত্রীর যোটক বিচার করে তবেই বিয়ে দেওয়া উচিত।