'মকরসংক্রান্তি' শব্দটি দিয়ে নিজ কক্ষপথ থেকে সূর্যের মকর রাশিতে প্রবেশকে বোঝানো হয়ে থাকে। ভারতীয় জ্যোতিষ শাস্ত্র অনুযায়ী 'সংক্রান্তি' একটি সংস্কৃত শব্দ, এর দ্বারা সূর্যের এক রাশি থেকে অন্য রাশিতে প্রবেশ করাকে বোঝানো হয়ে থাকে। ১২টি রাশি অনুযায়ী এরকম সর্বমোট ১২টি সংক্রান্তি রয়েছে। বিশ্বের বিভিন্ন দেশে, বিশেষত দক্ষিণ এশিয়ায় এই দিবস বা ক্ষণকে ঘিরে উদযাপিত হয় উৎসব। পৌষ সংক্রান্তি বা মকর সংক্রান্তি বাঙালি সংস্কৃতিতে একটি বিশেষ উৎসবের দিন। বাংলা পৌষ মাসের শেষের দিন এই উৎসব পালন করা হয়। এই দিন বাংলায় বিভিন্ন ধরনের অনুষ্ঠান আয়োজন করে থাকে। 

আরও পড়ুন- জানুয়ারি মাস কেমন প্রভাব ফেলবে ধনু রাশির উপর, দেখে নিন

পশ্চিম ভারতীয় প্রদেশ গুজরাটে উৎসবটি আরো অনেক বড় আকারে উদযাপিত হয়। মানুষ, সূর্য দেবতার কাছে নিজেদের ইচ্ছা বা আকূতিকে সুন্দর সুন্দর ঘুড়ির মাধ্যমে প্রকাশ করতে পালন করে ঘুড়ি উৎসব, যা মূলত প্রিয় দেবতার কাছে পৌঁছানোর জন্য একটি রূপক বা প্রতীক হিসেবে কাজ করে। গ্রামগঞ্জে এবং উপকূলীয় অঞ্চলে অনুষ্ঠানের প্রধান আকর্ষণ হিসেবে মোরগ লড়াই অনুষ্ঠিত হয়। মকরসংক্রান্তি সম্মান, অভিলাষ এবং জ্ঞানের দেবী সরস্বতীকে সম্মান প্রদানের মাধ্যমেও প্রকাশিত হয়। যেহেতু উৎসবটি শীতের মাঝামাঝি সময়ে উদযাপিত হয়, সেহেতু এই উৎসবে এমন ধরনের খাবার তৈরি করা হয়, যা শরীরকে উষ্ণ রাখে এবং বেশ শক্তি জোগায়। গুড় দিয়ে তৈরি তিলের লাড্ডু এই উৎসবের অন্যতম উপাদেয় খাবার। মহারাষ্ট্রে একে বলা হয় 'তিলগুল'। কর্ণাটকে একে বলা হয় 'ইল্লু বিল্লা'। অন্য কিছু প্রদেশে গবাদিপশুকে নানা রঙে সজ্জিত করা হয় এবং আগুনের ওপর দিয়ে ঝাঁপ দেওয়ানো হয়।

আরও পড়ুন- মঙ্গলবারের সারাদিন কেমন কাটবে, দেখে নিন আজকের রাশিফল

বিশেষ এই দিনে কিছু নিয়ম পালন করা আবশ্যক বলে মনে করেন অনেকেই। এই দিনে দূরে কোথাও যাত্রা করা শুভ নয় বলে মনে করা হয়। মকর বা পৌষ সংক্রান্তিতে কোথাও গেলেও নিজের বাড়িতে ফিরে আসার রীতি রয়েছে। এই দিনে রান্নাঘর-সহ পুরো বাড়িটিই পরিস্কার পরিচ্ছন্ন রাখা উচিত। নোংরা করা উচিত নয় বলে মনে করা হয়। মকর সংক্রান্তি বা পৌষ সংক্রান্তির দিনে তাই কোনও অতিথি বাড়িতে এলে তাঁকে খালি মুখে ফেরাতে নেই। এই দিন অতিথিকে আপ্যায়ণ করার অর্থ নারায়ণ সেবার সমান। তাই বিশেষ এই দিনে এই নিয়মগুলি পালন করে সূর্য দেবতার আর্শীব্বাদ লাভ করুন।