চাকরি, ব্যবসা ও শিক্ষার সমস্যাগুলি কাটিয়ে উঠতে কাজে লাগান দেবীপক্ষের এই সময়। রাশিচক্রে বসে যখন অশুভ গ্রহ থাকে তখন নানান সমস্যার সূচণা হয়। শাস্ত্র অনুসারে, ২০২০ সালের ১৮ অক্টোবর নবরাত্রির দ্বিতীয় দিন। এই দিনে মা ব্রহ্মচারিনী পূজিত হন। নবরাত্রির দ্বিতীয় দিন মা ব্রহ্মচারিনী পুজো করার বিশেষ গুরুত্ব বলা হয়েছে। মা ব্রহ্মচারিনীকে উপাসনা, তপস্যা, শক্তি, ত্যাগ, পুণ্য, আত্ম-নিয়ন্ত্রণ ও উদ্দীপনার কারণ হিসাবে বর্ণনা করা হয়েছে। একই সঙ্গে মা ব্রহ্মচারিনী শত্রুদের ধ্বংস করেন। মা ব্রহ্মচারিনী মঙ্গল গ্রহের অশুভতা দূর করেন।

আরও পড়ুন- নবরাত্রিতে ঘরের নেগেটিভ শক্তি দূর করতে, কাজে লাগান এই একটি উপায়

মা ব্রহ্মচারিনী মঙ্গলকে নিয়ন্ত্রণ করার ক্ষমতা রাখেন। মঙ্গল যখন রাশির জাতক জাতিকার ক্ষেত্রে অশুভ থাকে, তখন ব্যক্তি ক্রুদ্ধ হন। রাগের কারণে ব্যক্তিটি নিজেকে আহত করে। রাগের কারণে একজন ব্যক্তি হিংস্র হয়ে ওঠে এবং তার বক্তব্য দূষিত হয়, যার কারণে এই জাতীয় বন্ধু এবং আত্মীয়স্বজনও এই জাতীয় ব্যক্তিকে ত্যাগ করে। মঙ্গল যদি অশুভ হয় তবে আইনি জটিলতা ও মামলা-মোকদ্দমায় জড়িয়ে পড়ার সম্ভাবনা বৃদ্ধি পায়। 

 

 

যখন মঙ্গল অশুভ হয় তখন কখনও কখনও এটি কাজের ক্ষেত্রে বাধা সৃষ্টি করে। অশুভ মঙ্গল চাকরিতে পরিবর্তন আনবে। চাকরিতে যাওয়ার ঝুঁকি রয়েছে বলে বিরোধের পরিস্থিতি তৈরি করে। শুধু এটিই নয়, মঙ্গল ব্যবসায় ব্যবসায় ক্ষতির একটি পরিস্থিতিও তৈরি করে। মঙ্গল যদি অশুভ হয় তবে পড়াশোনাও বাধাগ্রস্ত হয়। মঙ্গল এই জাতীয় কিছু তৈরি করে যার কারণে শিক্ষার ক্ষেত্রে বাধা রয়েছে, যার কারণে ক্যারিয়ার ক্ষতিগ্রস্থ হয়। এই সমস্যাগুলি কাটিয়ে ওঠার জন্য বিশেষ ব্যবস্থা গ্রহণ করা উচিত। তাই দেবীপক্ষে মা ব্রহ্মচারিনী পুজো করলে মঙ্গল গ্রহের অশুভভাব দূর হয়। নবরাত্রির দ্বিতীয় দিন মা ব্রহ্মচারিনীকে উত্সর্গ করা হয়। এই দিনে নিয়ম মেনে মা ব্রহ্মচারিনী পুজো করতে হবে। মা ব্রহ্মচারিনী পরিচ্ছন্নতা বেশি পছন্দ করেন। তাই পুজো করার সময় পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার বিশয়ে বিশেষ নজর দিন।