আমাদের প্রত্যেকের জীবনে কিছু না কিছু সমস্যা রয়েছে। আমাদের জীবনের এই সমস্যাগুলোকে সহজেই কাটিয়ে ওঠার জন্য জ্যোতিষীরা নানান রত্ন ধারণের পরামর্শ দেন। জ্যোতিষশাস্ত্র বলছে সঠিক নিয়মে গ্রহ-নক্ষত্র অনুযায়ী রত্ন ধারণ করলে ফিরতে পারে আপনার ভাগ্যও৷ তবে এই রত্ন ধারণের বিষয়ে নির্দিষ্ট কিছু সময় এবং নিয়ম মেনে চলা জরুরি। না হলে রত্ন ধারণের উপযুক্ত ফল পাওয়া যায় না। কোন রত্ন কোন আঙুলে ধারণ করলে উপযুক্ত ফল পাওয়া যাবে, জ্যোতিষশাস্ত্রে এ বিষয়ে নির্দিষ্ট কিছু নিয়মাবলী রয়েছে। জেনে নেওয়া যাক সেই নিয়মগুলি-

আরও পড়ুন- জানুয়ারি মাস কেমন প্রভাব ফেলবে সিংহ রাশির উপর, দেখে নিন

মুনস্টোন কেবলমাত্র অনামিকায় ধারণ করতে হয়। মুক্তো সব সময় অনামিকা বা কনিষ্ঠায় ধারণ করা উচিত। রবির রত্ন এবং পোখরাজ ধারণ করতে হয় তর্জনী বা অনামিকায়। মঙ্গলের রত্ন এবং চুনী ধারণ করতে হয় অনামিকা বা তর্জনীতে। সেই রকম চন্দ্র গ্রহের রত্নও অনামিকা বা কনিষ্ঠায় ধারণ করা দরকার। শুক্র গ্রহের রত্ন ধারণ করতে হয় কনিষ্ঠা বা মধ্যমাতে। হীরা এবং পান্না ধারণ করতে হবে কনিষ্ঠা বা অনামিকায়। বৃহস্পতির রত্ন এবং প্রবাল সব সময় তর্জনী বা অনামিকাতে ধারণ করতে হয়। নীলা সব সময়েই মধ্যমাতে রত্ন ধারণ করতে হয়।  কনিষ্ঠা বা মধ্যমাতে বুধ গ্রহের রত্ন ধারণ করতে হয়।

আরও পড়ুন- কেমন কাটবে বৃহস্পতিবারের সারাদিন, দেখে নিন আজকের রাশিফল

রত্ন ধারনের ক্ষেত্রে শুধুমাত্র মেনে চলুন এই নিয়মগুলি। কাটিয়ে উঠুন গ্রহের প্রতিকার সহ বহু সমস্যা। তবে রত্ন ধারণ করলেই হবে না। আপনার সার্টিফায়েড খাঁটি রত্ন ধারন করতে হবে। তবেই সকল সমস্যা কাটিয়ে উঠতে পারবেন। অনেক ক্ষেত্রে বহু অর্থ ব্যয় করে রত্ন ধারন করার পরেও কোনও কাজ দেয় না। তখন আমরা হয় জ্যোতিষী বা জ্যোতিষশাস্ত্র-কেই ভুল বলে গালমন্দ করে থাকি। তাই রত্ন ধারণ করার অন্যতম এবং একমাত্র বিষয় হল রত্নটি খাঁটি কি না সেই বিষয়ে অবশ্যই সতর্ক থাকুন। প্রয়োজনে রত্ন বিশারদের থেকে পরামর্শ নিন।