এই শ্রাবণ মাসকে মনে করা হয় শিবের মাস ৷ তাই এই মাসে কিছু নিয়ম মেনে শিব পুজো বা আরাধনা করলে জীবনে দারুণ সুফল পাওয়া যায়। শিব পুজো দু'রকম ভাবেই হয় মূর্তি এবং লিঙ্গ। পূবেই বলা হয়েছে লিঙ্গ শব্দে অনেক গুলো অর্থ আছে। লিঙ্গ শব্দের অর্থ চিহ্ন বা প্রতীক। সাকার রূপে এরূপ লিঙ্গ শরীর বা চিহ্ন আমরা সর্বত্রই ব্যবহার করি।শিব হলেন হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের সর্বোচ্চ দেবতা। সনাতন ধর্মের শাস্ত্রসমূহে তিনি পরমসত্ত্বা রূপে ঘোষিত। শিব সৃষ্টি-স্থিতি-লয়রূপ তিন কারণের কারণ, পরমেশ্বর- এটা তার প্রণাম মন্ত্রেই বার বার উঠে এসেছে।  

তবে সব মন্ত্রের  মধ্যে অন্যতম একটি হল মহামৃত্যুঞ্জয় মন্ত্র। এটি একটি সর্বরোগ হরণকারী মন্ত্র । এই মন্ত্রটি ভগবান মহাদেবকে স্মরণ করে রচিত। এই মন্ত্রটি ঋগ্বেদেও দৃষ্ট হয় - আবার এই মন্ত্রটি মার্কণ্ডেয় পুরাণেও দৃষ্ট হয় । এই মন্ত্রটি জপ করলে মানুষ সব অশান্তি , রোগপীড়া , ব‍্যাধি থেকে মুক্তিপ্রাপ্ত হয় । নিরাকার মহাদেবই মৃত‍্যুমুখী প্রাণকে বলপূর্বক জীবদেহে পুণঃ প্রতিষ্ঠিত করেন এবং অপার শান্তিদান করেন । এই মন্ত্রের জপ করলে সমস্ত গ্রহের প্রকোপ থেকে রেহাই মেলে। আয়ু সঙ্কট থেকে বাঁচতেও এই মন্ত্র খুবই কার্যকরী। কালসর্প দোষ, বাস্তু দোষ, পিতৃদোষ— এই ধরনের দোষ থেকে মুক্তি পাওয়া যায় নিয়মিত এই মন্ত্র জপ করলে। পরিবারে কেউ অসুস্থ থাকলে তাঁর স্বাস্থ্যের উন্নতিতে সাহায্য করে এই মন্ত্র।

"ওম ত্র্যম্বকম যজামহে সুগন্ধিম পুষ্টিবর্ধনম্।
উর্বারুকমিব বন্ধনান্ মৃত্যৌর্মুক্ষীয় মামৃতাত্।।"

এই মন্ত্র জপ করার আগে কী কী বিষয়ে খেয়াল রাখবেন—

সকালে স্নান করার পরে পবিত্র মনে এই মন্ত্র পাঠ করুন।
এই জপ করতে হবে রুদ্রাক্ষের মালার সাহায্যে।
ধূপ বা প্রদীপ সহযোগে এই মন্ত্র জপ করুন।
ভগবান শিবের ছবি বা মূর্তি কিংবা মহামৃত্যুঞ্জয় যন্ত্রের সামনে দাঁড়িয়ে এই মন্ত্র জপ করুন।
কুশের আসনে বসে জপ করুন।
যদি নিজে মন্ত্র জপ করতে না পারলে কোনও পুরোহিতকে দিয়ে বাড়িতে এই মন্ত্র পাঠ করান।