বাস্তু বলতে সব কিছুকেই বুঝায়- তা একটি স্থান হতে পারে- কিংবা একটা বাড়িও হতে পারে। বাস্তুশাস্ত্র, এই বাস্তু শব্দটি এসেছে বস্তু থেকে। সভ্যতার শুরু থেকেই ভারতীয়  উপমহাদেশে শিল্পচর্চাকে ঊর্ধ্বে স্থান দেয়া হয়েছে। বাস্তুশাস্ত্র মতে, জানলা দিয়েই ঘরে সূর্যের আলো প্রবেশ করে, যা ঘরের নেগেটিভ শক্তি দূর করে পজেটিভ শক্তি বাড়িয়ে তোলে। তাই যাতে ঘরে পর্যাপ্ত পরিমানে সূর্যের আলো প্রবেশ করতে পারে সেই বিষয়ে খেয়াল রাখা প্রয়োজন। 

বাস্তুমতে, বাড়ির জানলা নিয়ে রয়েছে নির্দিষ্টি কিছু নিয়ম, যেগুলি বাড়ি তৈরির সময় মেনে চললে বাস্তু পজেটিভ এনার্জি সমৃদ্ধ হবে। এতে বাস্তুর বহু দোষ কেটেও যায়। দেখে নেওয়া যাক জানলা নিয়ে বাস্তর নিয়মগুলি-

বাড়ি তৈরির সময় অবশ্যই খেয়াল রাখতে হবে বাড়ির জানলা সব সময় জোড় সংখ্য়ায় হওয়া উচিত। যেমন- ৪ টি বা ৬টি। বিজোড় সংখ্যার জানলা বাস্তুর জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকর। পূর্বদিকে সব সময় একটি জানলা রাখার চেষ্টা করবেন। ভোর বেলার সূর্য রশ্মি শরীরের জন্য যেমন উপকারী সেরকম ভাবে তা বাস্তুর জন্যও অত্যন্ত শুভ। তাই বাড়ি তৈরীর সময় অবশ্যই পূর্বদিকের দেওয়ালে ছোট হলেও একটি জানলা রাখা উচিত। বাস্তুমতে, ঘরের এক দেওয়ালে একাধিক জানলা বানানো একদম উচিত নয়। এতে বাড়ির শান্তি নষ্ট হয়। 

ঘরের জানলার আকার সব সময় দেওয়ালের সঙ্গে সমানুপাতিক হওয়া উচিত। আর এর আকার খুব বেশি বড় অথবা খুব বেশি ছোটও হওয়া উচিত নয়। খেয়াল রাখতে হবে ঘরের জানলা খোলা বা বন্ধের সময় যাতে কোনও শব্দ না হয়। জানলা বা দরজা খোলা ও বন্ধের সময় অস্বস্তিকর শব্দ মানসিক শান্তি বিঘ্নিত করে। পাশাপাশি বাস্তুর জন্যও এই শব্দ ক্ষতিকর। এমন সমস্যা থাকলে যত দ্রুত সম্ভব এর মেরামত করুন।