চাণক্য একজন মহান শিক্ষকের পাশাপাশি বিদ্বানও ছিলেন। চাণক্য সমাজবিজ্ঞান, রাষ্ট্রবিজ্ঞান, অর্থনীতি এবং কূটনীতি সম্পর্কেও ভাল জ্ঞান রাখেন। চাণক্য খুব গভীরভাবে মানুষকে প্রভাবিত করে সমস্ত বিষয় অধ্যয়ন করেছিলেন। চাণক্য বিশ্বাস করেছিলেন যে কোনও নতুন কাজ শুরুর আগে একজন ব্যক্তির নির্দিষ্ট কিছু বিষয় যত্ন নেওয়া উচিত। চাণক্যের মতে, কোনও ব্যক্তির আকাঙ্ক্ষা এবং লক্ষ্যটি নতুন কাজ দ্বারা নির্ধারিত হয়। কোনও ব্যক্তি যখন নতুন ব্যবসা শুরু করে বা একটি নতুন দায়িত্ব গ্রহণ করে, তখন তাকে খুব গুরুত্ব সহকারে পালন করা উচিত।

পরিকল্পনা- চাণক্য নীতি অনুসারে, যখন আপনি কোনও নতুন দায়িত্ব বা ব্যবসার কাজ শুরু করতে চলেছে, প্রথমেই তার একটা পরিকল্পনা থাকা উচিত। পরিকল্পনা অনুযায়ী কাজ করলে সাফল্যের সম্ভাবনা বেড়ে যায়। পরিকল্পনা না করে কাজ শুরু করা লোকেরা সমস্যার মুখোমুখি হন। কাজের প্রথম পর্যায়ে কী করা উচিত এবং শেষ পর্যায়ে কোন কোন বিষয়ে যত্ন নেওয়া উচিত তা পর্যায়ক্রমে পরিকল্পনা করা উচিত। আপনি যখন এইভাবে পরিকল্পনা করে কাজ শুরু করবেন, আপনি অবশ্যই সফলতা পাবেন।

পরিকল্পনাটি গোপণ রাখা- চানক্যের মতে , কোনও বড় কাজের পরিকল্পনা শেষ না হওয়া পর্যন্ত প্রকাশ করতে নেই । কাজ শেষ হওয়ার আগে আপনাকে পরিকল্পনার ক্ষতিও বহন করতে হতে পারে। শত্রুরা বা যারা আপনার বিরোধী তারা এটিকে তাদের নিজস্ব সুবিধার জন্য ব্যবহার করতে পারে, যার কারণে ক্ষতিও হতে পারে। তাই পরিকল্পনা সব সময় গোপণ রাখা উচিত।

গোষ্ঠী গঠন- চাণক্যের দ্বারা জীবনে দুর্দান্ত সাফল্য হয়েছে এমন বেশিরভাগ যোগ্য লোক বিশ্বাস করেই এই নীতি উপর নির্ভর করে। যোগ্য লোকের সহায়তা এবং আস্থায় জীবনে বড় বড় কিছু করা যায়। তখন যতক্ষণ বিশ্বস্ত ব্যক্তিদের একটি দল থাকবে না, ততক্ষণে সেখানে বড় সাফল্য থাকবে না। এই বিশ্বাসের অক্ষরগুলিও আপনার বন্ধু এবং আপনার অধস্তন হতে পারে।

সম্পদের সঠিক ব্যবহার- চাণক্যের মতে যে কোনও নতুন কাজ শুরু করার আগে অবশ্যই তার সংস্থান সম্পর্কে জেনে রাখা উচিত। কাজ শেষ করার জন্য এই সংস্থানগুলির সঠিক ব্যবহার অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। সংস্থানগুলি খুব চিন্তাশীল এবং কৌশলগতভাবে ব্যবহার করা উচিত। তবেই আপনি সাফল্য পাবেন।