বাড়ির সমস্ত জিনিসের জন্য শুভ দিক রয়েছে। ঘর এবং উঠোনে ফুলের এই গাছগুলি ইতিবাচকতা বাড়ায় এবং একই সঙ্গে বাস্তু অনুসারে কিছু ফুলের গাছ শুভ বলে মনে করা হয়। বাস্তু শাস্ত্র মতে ঘরের ইতিবাচকতা বাড়ানোর এবং নেতিবাচকতা হ্রাস করার জন্য এই গাছগুলি রাখতে পারেন। এতে ঘরের সৌন্দর্য যেমন বৃদ্ধি পাবে, একইভাবে বাস্তুগত পরিবর্তনও হবে। গাছ এবং গাছপালার জন্য কোন দিকটি ভাল, সে সম্পর্কেও বিশেষ নিয়মগুলো জেনে রাখা প্রয়োজন। বাস্তু বিশেষজ্ঞদের মতে, গাছ এবং গাছপালা সম্পর্কিত কিছু বিশেষ বাস্তু টিপস জেনে নিন-

ঘরের গোলাপ, গাঁদা, চাঁপা, জুঁই ফুলের গাছগুলি ইতিবাচক শক্তি বাড়ায়। এই গাছগুলি বাড়ির উত্তর বা পূর্ব দিকে লাগানো উচিত। তুলসী গাছ যদি ঘরে লাগাতে হয় তবে তা কেবল পূর্ব বা উত্তর দিকেই লাগান। বহু প্রাচীন কাল থেকেই বাড়ির উঠোনে তুলসী গাছ রাখার প্রচলন রয়েছে। গোপালকে তুলসী ছাড়া পুজো হয় না। এর পাতা আয়ুর্বেদ অনুসারে খুব উপকারী। এগুলি প্রতিদিন খাওয়া উচিত। প্রতিদিন সকালে তুলসীতে জল দিন এবং সন্ধ্যায় এর কাছে একটি প্রদীপ জ্বালান। যদি আপনি এই বিষয়গুলি মাথায় রাখেন তবে বাড়ির এই গাছগুলিই বাস্তুর ইতিবাচকতা বৃদ্ধিতে সাহায্য করবে।

এর পাশাপাশি বাড়ির দক্ষিণ দিকে কোনও গাছ রোপণ করা এড়ানো উচিত। ছোট গাছগুলি যা  গৃহ সজ্জার জন্য রোপণ করা হয়, এটি উত্তর বা পূর্ব দিকে লাগানো শুভ। আপনি যদি ঘরে কোনও ছোট বাগান করতে চান তবে আপনি এটি বাড়ির পূর্ব, উত্তর বা পশ্চিম দিকে তৈরি করতে পারেন। উদ্ভিদ এবং লতাগুলি উত্তর-পূর্ব দিকে অর্থাৎ উত্তর-পূর্বে রোপণ করলে গাছ ভালোও থাকে কারণ পর্যাপ্ত সূর্যের আলো পায়। ফলে বাড়ির নেগেটিভ শক্তি দূর হয়।

ঘরে গাছ লাগিয়েও ঘরের বাড়তি তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব। এটি পরিবেশের জন্যও খুব উপকারী। সবুজ রঙের কারণে, নেতিবাচক চিন্তাভাবনা শেষ হয় এবং ইতিবাচকতা বাড়ে। মনে রাখবেন গাছ এবং গাছের খারাপ অংশগুলি অবিলম্বে অপসারণ করা উচিত। পরিচ্ছন্নতার বিশেষ যত্ন নিন। যদি গাছগুলির চারপাশে ময়লা থাকে তবে এটি স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকারক হতে পারে।