দীপাবলি আলোর উত্সব। এই উত্সবটি প্রদীপগুলিকে উত্সর্গীকৃত, তাই এটিকে দীপোৎসবও বলা হয়। আধ্যাত্মিকভাবে, এটি 'অন্ধকারের উপরে আলোর বিজয়' বোঝায়। "দীপাবলি" শব্দের অর্থ "প্রদীপের সমষ্টি"। এই দিন হিন্দুসম্প্রদায় ঘরে ছোট ছোটো মাটির প্রদীপ জ্বালেন। এই প্রদীপ জ্বালানোর অর্থ হল অমঙ্গল বিতাড়নের প্রতীক।বাড়িঘর পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন করে সারা রাত প্রদীপ জ্বালিয়ে রাখলে ঘরে লক্ষ্মী আসেন বলে উত্তর ভারতীয় হিন্দুরা বিশ্বাস করেন। বাংলার দীপান্বিতা কালীপুজো বিশেষ জনপ্রিয়। এই উৎসব সাড়ম্বরে আলোকসজ্জা সহকারে পালিত হয়।

আরও পড়ুন- মিথুন রাশির কতটা উন্নতি হবে নভেম্বর মাসে, দেখে নিন

দীপাবলিতে সমস্ত বাড়িতে প্রদীপ জ্বালানো হয় তবে কয়েকটি জায়গা রয়েছে যেখানে প্রদীপ জ্বালালে মিলবে বিশেষ সুবিধা। বাস্তু অনুসারে বাড়ির কোন স্থানে প্রদীপগুলি অবশ্যই রাখা উচিত তা জেনে নিন। দীপাবলির রাতে বাড়ির এই জায়গাগুলিতে প্রদীপ জ্বালালে ভাগ্য সব সময় আপনার সঙ্গ দেবে।

আরও পড়ুন- রবিবার ৪ রাশির জীবনে হতে পারে বিশেষ পরিবর্তন, দেখে নিন আপনার রাশিফল

যদি আপনি ঋণ থেকে মুক্তি পেতে এবং আর্থিক সমস্যার সমাধান করতে চান তবে দীপাবলির রাতে গরুর দুধের তৈরি খাঁটি ঘি দিয়ে একটি প্রদীপ জ্বালান।
দীপাবলির রাতে তুলসী গাছের নীচে একটি প্রদীপটি রাখুন। বাড়িতে তুলসীর গাছ না থাকলে যে গাছই হোক না কেন তার কাছে রাখুন।
প্রধান দরজার বাইরে চারপাশে বা এমনকি একটি রাঙ্গোলির মাঝখানে একটি প্রদীপ স্থাপন করা উচিত।
একটি পঞ্চ প্রদীপ জ্বালিয়ে বাড়ির কাছাকাছি কোনও বট গাছের নীচে এবং নিকটবর্তী মন্দিরে সাতটি প্রদীপ জ্বালিয়ে দিন।
এগুলি ছাড়াও বাথরুমের কোণে, বাড়ির দেয়াল বা চৌবাচ্চা প্রাচীরের উপর, জানালায়, ছাদে, বাড়ির অন্ধকার স্থানে প্রদীপ জ্বালানো উচিত।