শুভগ্রহ জাতকের জীবনে শুভ ফল দিয়ে থাকে। আর  অশুভ গ্রহের দশাকালে জাতককে নানা সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়। জ্যোতিষশাস্ত্র মতে একটি রাশিচক্রে দুই রকমের গ্রহ থাকে নৈসর্গিক শুভ গ্রহ ও অশুভ গ্রহ। গ্রহের রাশিচক্রে অবস্থান, মাঙ্গলিক অবস্থান ও ভাবগত ভাবে অবস্থানের ওপর গ্রহের শুভ ও অশুভ ফল নির্ভর করে। এই অশুভ গ্রহের প্রভাব কাটানোর জন্য নানাবিধ প্রতিকারের পরামর্শ দেন জ্যোতিষীরা। তবে জ্যোতিষশাস্ত্র মতে সহজ উপায়েই কিছু জিনিস দান করেই সহজেই আপনি এই গ্রহের কুপ্রভাব কাটিয়ে উঠতে পারবেন। চলুন জেনে নেওয়া যাক সেই উপায়গুলি-
যদি আপনার চন্দ্র অশুভ হয় তাহলে প্রতি সোমবার উপোস করলে সুফল মিলবে। এরসঙ্গে প্রতি সোমবার দুধ, চাল, দই, রুপো কোনও মহিলাকে দান করলে সুফল পাওয়া যায়।
যদি মঙ্গল অশুভ থাকে তাহলে মঙ্গলবার উপোস করে মুসুর ডাল ও মিষ্টি দান করুন। দ্রুত সুফল পাবেন। 
যদি রবি অশুভ হয় তাহলে প্রতি রবিবার উপোস করে গম, আখ, আখের গুড়, তামা ইত্যাদি দান করলে ভাল ফল পাওয়া যায়। প্রতিদিন তামার পাত্রে জল রেখে সূর্যমন্ত্র সাতবার জপ করে সেই জল সূর্যের উদ্দেশ্যে অর্ঘ্য দিলে সুফল পাওয়া যায়। 
বুধ অশুভ হলে প্রতি বুধবার উপোস করে সবুজ মুগ ডাল এবং সবুজ রং-এর বস্ত্র দান করলে দ্রুত সুফল পাবেন।
বৃহস্পতি অশুভ হলে প্রতি বৃহস্পতিবার উপোস করে কাঁচা হলুদ জলে ভিজিয়ে রেখে সেই জল দিয়ে স্নান করলে এবং হলুদ বস্ত্র দান করলে দ্রুত শুভ ফল পাওয়া যেতে পারে। 
শুক্র অশুভ হলে, তারা প্রতি শুক্রবার উপোস করে দই, চাল, দুধ গরুকে দান করুন অথবা খাওয়ান। নিজের খাবারের কিছুটা অংশ গরুকে খাওয়াতে হবে। 
যদি শনি অশুভ হলে প্রতি শনিবার উপোস করে তিলের তেল একটি লোহার প্রদীপে জ্বালাতে হবে। নীল রঙের বস্ত্র দান করতে হবে। 
যদি রাহু অশুভ থাকে তাহলে, প্রতি শনিবার উপোস করতে হবে। এছাড়া ওইদিন কালো বস্ত্র, কালো সরষে গরীবকে দান করবেন। 
কেতু অশুভ থাকলেও প্রতি শনিবার উপোস করতে হবে। মিষ্টি, রুটি বা বিস্কুট কুকুরকে খাওয়াতে হবে। সেই সঙ্গে পুরুষরা ডান কানে একটি সোনার দুল পড়বেন, অবশ্যই শুভ ফল পাবেন।