এদেশের অসম, বিহার, মহারাষ্ট্রের ছবি ভেসে উঠেছে বাংলাদেশেও। বাংলাদেশে লাগাতার বৃষ্টিপাতের ফলে মৃতের সংখ্যা ১০০ ছাড়িয়েছে বলে খবর। গত তিন দিনেও প্রবল বৃষ্টিপাতের কারণে ৩০ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গিয়েছিল। কিন্তু এখনও পর্যন্ত সেই মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ১১৪-তে। বলা হচ্ছে যে গত কয়েক বছরের মধ্যে এইরকম ভয়াবহ বন্যা অনেকেই দেখেনি। 

এখনও পর্যন্ত পাওয়া খবর অনুসারে, মৃতদের মধ্যে অনেকেই ভেসে গিয়েছেন বন্যার জলে। অনেকের আবার মৃত্যু হয়েছে ভূমি ধসের কারণে। প্রবল বন্যায় অনেকেই প্রাণ হারিয়েছেন সাপের কামড়ে। বাজ পড়েও মৃত্যু হয়েছে কয়েকজনের। 

সংবাদসংস্থার তরফে খবর, জামারপুরে নৌকো উল্টে পাঁচজন মেয়ের মৃত্যুর খবর পাওয়া গিয়েছে। তাঁদের বয়স গড়ে ছয় থেকে আঠারোর মধ্যে। ময়মনসিংহে বন্যার জেরে প্রায় ৬টি গ্রাম জলের তলায় চলে যাওয়ার খবর মিলেছে। আর সেই কারণে ঘরছাড়া হয়েছেন প্রায় ২০০০ মানুষ। তাঁরা এখন নিরাপদ আশ্রয়ের সন্ধানে। 

প্রশাসনিক সূত্রে খবর, চলতি মাসের প্রবল বৃষ্টিপাত ও বন্যার জেরে এখনও পর্যন্ত ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন অন্তত দশ লক্ষ মানুষ। প্রশাসনিক সূত্রে জানা গিয়েছে, বাড়তে থাকা বৃষ্টিপাতের কারণে এখনই সেখানে জলস্তর কমবে না বলে জানানো হয়েছে। প্রসঙ্গত জুন থেকে সেপ্টেম্বরের বর্ষায় বাংলাদেশে প্রতি বছরই বন্যার প্রকোপ বাড়ে। এযাবৎ বাংলাদেশে সবচেয়ে ভয়াবহ বন্যা হয়েছিল ১৯৯৯ সালে। সেবার দেশের ৭০ শতাংশ অংশ জলের নীচে চলে গিয়েছিল।