শনিবার বাংলাদেশের সাতক্ষীরা জেলার ঈশ্বরীপুর গ্রামের শতাব্দী প্রাচীন যশোরেশ্বরী কালী মন্দিরে পূজা দিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। মন্দিরে তাঁকে সনাতন পদ্ধতিতে স্বাগত জানানো হয়। মা কালী একটি হাতে তৈরি সোনার মুকুট পরিয়ে দেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। এরপর মন্দিরের ভিতরে প্রধানমন্ত্রী মোদীকে বসে পড়ে মায়ের আরাধনা করতে দেখা গিয়েছে। মন্দিরের পুরোহিতরা মন্ত্র পড়েন।

এই মন্দিরকে কেন্দ্র করে একটি বিরাট 'মা কালী মেলা' হয়। সীমান্তের দুইপাড় থেকেই বিপুল সংখ্যক ভক্ত সেইসময় এই স্থানে সমবেত হন। মাতৃবন্দনার পর প্রধানমন্ত্রী সেই মেলার কথা উল্লেখ করে বলেন মন্দির সংলগ্ন এলাকায় একটি কমিউনিটি হলের প্রয়োজন। কালী পূজার সময় যাঁরা যশোরেশ্বরী মন্দিরে আসবেন, তাঁরা বহু উদ্দেশ্যে ওই হলটি ব্যবহার করতে পারবেন। এরপরই, তিনি জানান ভারত সরকারই ওই কমিউনিটি হল তৈরি করবে। সামাজিক, ধর্মীয় এবং শিক্ষামূলক অনুষ্ঠান যেমন আয়োজন করা যাবে, তেমনই ঘূর্ণিঝড়ের মতো দুর্যোগের সময়ে সকলে আশ্রয়ও নিতে পারবেন।

যশোরেশ্বরী মন্দির সতী মায়ের ৫১ পীঠের অন্যতম। প্রচলিত বিশ্বাস অনুসারে, এখানে সতীর হাতের তালু পড়েছিল। কিংবদন্তি অনুযায়ী, মহারাজা প্রতাপাদিত্যের সেনাপতি জঙ্গলের মধ্যে একটি আলোকিত রশ্মি দেখতে পেয়েছিলেন। খুঁজতে গিয়ে একটি মানুষের হাতের তালুর আকারে খোদাই করা পাথরের টুকরো পেয়েছিলেন। সেই থেকেই মহারাজা প্রতাপাদিত্য যশোরেশ্বরী কালী মন্দির তৈরি করে কালী পূজা শুরু করেছিলেন।