ছপাক মুক্তির বেশ কয়েকদিন আগে থেকেই একের পর এক বিতর্কে জড়িয়ে পড়ছিলেন দীপিকা পাড়ুকোন। কখনও প্রকাশ্যে উঠে এসেছে ছিল ছপাক ছবির স্বত্ত্ব ঘিরে জল্পনার কথা, কোথাও আবার বেশি প্রকট হয়ে ধরা দিয়েছিল দীপিকার জেএনইউ যাওয়ার ঘটনা। এরপর থেকেই নেট দুনিয়ায় দীপিকা বয়কটের ডাক উঠেছিল বিগত কয়েকদিন। কিন্তু কোথাও গিয়ে দীপিকা পাড়ুকোন প্রমাণ করে দিলেন ভালো কাজের কোনও বিকল্প নেই। ফলেই সফল ছপাক।

আরও পড়ুনঃ রণবীরের বিপরীতে অভিনয়ের অভিজ্ঞতা কেমন, জানালেন শালিনী

সমস্যা দানা বাঁধল অন্য কোথাও। ছপাক বয়কট আটকানো গেলেও, দীপিকা বয়কট কোথাও গিয়ে আটকানো সম্ভব হল না। রবিবার জেএনইউ কাণ্ডে ঐশী ঘোষের পাশে দাঁড়ানোর পরই অভিনেত্রী বাদ পড়লেন স্কিল ইন্ডিয়া থেকে। অনুমান করা হচ্ছে, জেএনইউ-তে যাওয়ার জন্য এবার দীপিকার বিরুদ্ধে নয়া পদক্ষেপ নেওয়া হল সরকারের পক্ষ থেকে। জেএনিউ ঘটনার দুদিনের মাথায় ইউনিভার্সিটিতে গিয়ে ঐশীর সঙ্গে দেখা করে আসেন দীপিকা। কিন্তু কোথাও গিয়ে তা মনঃপুত হল না বিভিন্ন রাজনৈতিক মহলের কাছে। তা বারংবার প্রমাণ করেছে কেন্দ্রীয় সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রকেরা। ফলে জল্পনা তুঙ্গে, একপ্রকার শাস্তিসরূপই কি এবার দীপিকাকে সরিয়ে দেওয়া হল স্কিল ইন্ডিয়ার ভিডিও থেকে। 

২০১৫ সালে মোদী সরকার স্কিল ইন্ডিয়া শুরু করেছিলেন। দেশের জন্য যে ছবিগুলো ভালো তার পাশে দাঁড়িয়ে উন্নয়ন মন্ত্রক একটি করে ভিডিও বানিয়ে থাকেন। এর আগে সুঁই ধাগা ছবির সময় অনুষ্কা ও বরুণের জন্য বানানো হয়েছিল একটি ভিডিও। সেই ভিডিও প্রমোশনের জন্যও ব্যবহার করা হত। এমনই প্রয়াস নেওয়ার কথা ছিল ছপাক ছবির জন্য। কিন্তু এবার সেই ভিডিও থেকে বাদ পড়লেন দীপিকা পাড়ুকোন। এর আগে যেই ব্যক্তি ছিলেন ভারত লক্ষ্মী সরকারী প্রজেক্টের ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসডর, তিনিই এখন ব্রাত।