শেষ হল আর.কে স্টুডিওর পথ চলা। কাপুর পরিবার আ.কে স্টুডিও বিক্রি করল গোদরেজ সংস্থাকে। শুক্রবার গোদরেজ প্রকাশ্যে আনে এই সংবাদ। ১৯৫০ সালে রাজ কাপুর তৈরি করেছিলেন এই স্টুডিও। যেখানে প্রথম শ্যুটিং হয়েছিল আওয়ারা(১৯৫১) ছবির। একের পর এক বিগ বাজেটের ছবির আঁতুড়ঘর হয়ে ওঠে এই স্টুডিও, জন্ম নেয় জিস দেশমে গঙ্গা বহতি হ্যায়, মেরা নাম জোকার, রাম তেরি গঙ্গা মইলি, ববি. হেনা-র মত সব ছবি। ১৯৪৮ সালে রাজ কাপুর নিজের প্রযোজনা সংস্থা খোলার পরই তৈরি হয় এই স্টুডিও। যার আয়তন ছিল ২.৫ একর।

স্বর্ণযুগের স্মৃতি আগলে রাখা এই স্টুডিও কেন বিক্রির সিদ্ধান্ত নিল কাপুর পরিবার। পেছনের কারণটা খানিক স্পষ্ট। ১৯৯০ সাল থেকেই ভাঙন ধরে এই স্টুডিওতে। একসময় রাজ কাপুরের নিজস্ব প্রযোজনা ছাড়াও তৈরি হয়েছিল আরও ১০০টা ছবি। কিন্তু ১৯৯১ সালে হেনা তৈরি হওয়ার পর থমকে যায় পথ চলা। সেভাবে কাজ হয় না আর। এরপর বেশ কয়েকটি টিভি শো আর সিরিয়ালে ব্যবহৃত হত এই সেট। কিন্তু তাতে পুরণ হত না স্টুডিও রক্ষণাবেক্ষণের খরচ। তবুও চলছিল কোনও মতে। তবে ২০১৭ সালে আগুন লাগার ফলো যখন তছনচ হয়ে গেল স্টুডিও, হাল ছাড়ার ভাবনা উদয় হয় তখন থেকেই।

গতবছর অক্টোবরেই আভাস মিলেছিল বিক্রি হতে চলেছে আর.কে স্টুডিও, তা এবার প্রকাশ্যে এল শুক্রবার। খবর পেয়ে অনেকেই হতাস হয়েছেন বটে, কিন্তু কাপুর পরিবারের বক্তব্য, পুনরায় একে তৈরি করতে যা খরচ তা ভবিষ্যতে এই স্টুডিও থেকে তুলে আনা সম্ভব হবে না। আর কেয়কদিন পর থেকেই একটু একটু করে মুছতে থাকবে অতীতের ছাপ। তৈরি হবে কমপ্লেক্সসহ শপিংমল।