বায়োপিকের দৌরে এবার নাম লেখালেন জয়ললিতা। সেই ছবিরই মুখ্য ভুমিকায় অভিনয় করার কথা ছিল বিদ্যা বালান-এর। সেই মতই এগোচ্ছিল কাজ। পড়া হয়েছিল ছবির চিত্রনাট্যও। কিন্তু সেই দিকে নজর রেখেই নায়িকা মনে প্রশ্ন জাগে হাজার। একের পর এর কৌতূহল মেটানোর ভারও নেন পরিচালক। কিন্তু পরিশেষে মিলল না স্বস্তি। একপ্রকার বিরক্ত হয়েই কঠোর সিদ্ধান্ত নিলেন পরিচালক।
তামিল পরিচালক এ.এল বিজয় সিদ্ধান্ত নেন ২০১৯ সালে  হাত দেবেন নতুন ছবির কাজে। সেই মতই তৈরি করেন পরিকল্পনা। স্থির করা হয় ছবির প্রেক্ষাপট। জয়ললিতার বায়োপিক নিয়েই কাজ করার ইচ্ছে প্রকাশ করেন তিনি। যেমন কথা তেমন কাজ। ফলেই সেই ছবিকে ঘিরে প্রস্তুতি শুরু হয় তড়িঘড়ি। মুখ্যভুমিকার প্রস্তাবও পৌঁচ্ছয় বিদ্যার কাছে। কিন্তু পরিশেষে রইল না সেই চুক্তি। ছবিকে ঘিরে একের পর এক প্রশ্ন করায় পরিচালকের মনে প্রশ্ন জাগে, বিদ্যার চরিত্র নিয়ে কোথাও যেন স্বাচ্ছন্দতার অভাব বোধ করেন তিনি। এবং ছবি থেকে বাদ পরেন নায়িকা।
সেই সুযোগ এবার পৌঁচ্ছল কঙ্গনা রানওয়াতের কাছে। ছবির চিত্রনাট্য লেখক ভিজয় প্রসাদ সদ্য মনিকর্ণিকা ছবিতে কাজ করেছেন কঙ্গনার সঙ্গে। তাই তিনিই প্রস্তাব দেন পরিচালককে এই চরিত্রে কঙ্গনাকে নেওয়ার জন্য।  যদিও এই বিষয় এখনো কোনও চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিয়ে উঠতে পারেননি পরিচালক। তবে এই চরিত্রে কঙ্গনা রানওয়াতকে কেমন লাগবে, সেই নিয়ে এখন জল্পনা তুঙ্গে।