দীর্ঘ ৪০ বছর কেটেছে বিলেতে। এবার ঘরে ফিরতে পারেন ভগবান শ্রীরাম, সীতা আর লক্ষ্মণ। ভারতের পক্ষ থেকে জানান হয়েছে ইংল্যান্ড থেকে তিনটি প্রাচিন মূর্তি ফিরিয়ে আনার জন্য তৈরি রয়েছে প্রশাসন। তামিলনাড়ুর একটি মন্দির থেকে ১৯৭৮ সালে প্রাচিন এই তিনটি মূর্তি চুরি হয়ে গিয়েছিল। প্রাথমিকভাবে অনুমান করা হয় তিনটি মূর্তি ১৫ শতকে বিয়জগড় আমলে তৈরি। 

তিনটি মূর্তির খুঁজে দিতে রীতিমত অগ্রণী ভূমিকা গ্রহণ করেছিল ইংল্যন্ডের পুলিশ। ২০১৯ সালে লন্ডনে ভারতীয় রাষ্ট্রদূতকে ইন্ডিয়া প্রাইড প্রকল্পের তরফ থেকে জানান হয়েছিল যে ভারত থেকে চুরি হওয়া প্রায় ৪টি প্রাচিন মূর্তি ব্রিটেনে থাকতে পারে। মূর্তিগুলির মধ্যে রাম, লক্ষ্ণণ আর সীতা ছাড়াও একটি হনুমানের মূর্তি রয়েছে। তারপরই ভারতীয় মিশনটি লন্ডনের মেট্রোপলিটন পুলিশ আর্ট অ্যান্ড অ্যান্টিক ইউনিটের কাছে পাঠিয়ে দেয়। তামিলনাড়ু পুলিশের সঙ্গে যৌথ উদ্যোগেই তদন্ত নামে লন্ডনের পুলিশ। তামিলনাড়ু পুলিশের পক্ষ থেকে মূর্তিগুলির বিস্তারিত বিবরণ পাঠান হয়ে ইংল্যন্ডে। পাশাপাশি দেওয়া হয়েছিল একাধিক তথ্য। 


মেট্রোপলিটান পুলিশ মূর্তির বর্তমান মালিকের সঙ্গে যোগাযোগ করে। তাঁকে বলা হয়েছিল এগুলি পাচার হওয়া মূর্তি। ভারতের মন্দির থেকেই এই প্রতিমাগুলি চুরি করে আনা হয়েছে। একই সঙ্গে মূর্তগুলি ফিরিয়ে দেওয়ার প্রস্তাবও দেওয়া হয়। যেহেতু মূল অভিযুক্ত অর্থাৎ যে ব্যক্তি ওই মূর্তগুলি ব্রিক্রি করেছিল তার মৃত্যু হওয়ায় নতুন করে তদন্ত শুরু করার কোনও সুযোগ ছিল না ব্রিটেনের পুলিশের হাতেই। তাই বর্তমান মালিকের কাছে মূর্তি ফেরানোর আবেদ জানান হয়েছিল। 

সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি তিনটি মূর্তি ভারতীয় রাষ্ট্রদূতের অফিসে মূর্তি জমা দিয়েছেন। তিনটি মূর্তি তামিলনাড়ু সরকারের হাতে তুলে দেওয়া হবে। ভারতীয় হাইকমিশনের পক্ষ থেকে জানান হয়েছে, এর আগেও ব্রিটেন প্রশাসনের উদ্যোগে একাধিক চুরি হয়ে যাওয়া মূর্তি ফেরত পেয়েছে ভারত। আগামী দিনেও বেশ কয়েকটি ওই জাতীয় প্রজেক্ট হাতে রয়েছে। সেগুলিতেও সাফল্য পাওয়া যাবে বলেও আশা করা হয়েছে।