করোনাভাইরাসের সংক্রমণ নিয়ে ব্রিটেনের উদ্বেগ যে এখনও পুরোপুরি কাটেনি তা আরও একবার স্পষ্ট করে দিলেন সেদেশের স্বাস্থ্য মন্ত্রী ম্যাট হ্যানকক। তিনি বলেছেন ২১ জুন যে ব্রিটেন লকডাউন পুরোপুরি তুলে নেবে তা এখনও নির্দিষ্ট করে বলা যায় না। প্রয়োজনে লকডাউনের মেয়াদ বাড়ান হতে পারে। একই সঙ্গে ব্রিটেনের স্বাস্থ্য মন্ত্রী করোনাভাইরাসের ডেল্টা রূপ নিয়েও উদ্বেগ প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, এটির সন্ধান প্রধমে ভারতে পাওয়া গেলেও এখন তা ইংল্যান্ডে রীতিমত প্রভাব বিস্তার করেছে। করোনার ডেল্টা রূপ আগের তুলনায় ৪০ শতাংশ বেশি সংক্রমণ ছড়িয়ে দিতে পারে বলেও উদ্বেগ প্রকাশ করেছে ব্রিটেনের গবেষক ও চিকিৎসকরা। 

ব্রিটেনের স্বাস্থ্য মন্ত্রী হ্যানকক বলছেন, গত মাসে ভারতে প্রথম কোভিড ১৯ এর জেল্টা রূপটি পাওয়া গিয়েছিল। বর্তমান সেটি ইংল্যান্ডে রীতিমত প্রভাব বিস্তার করেছে। আর সেই কারণে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা নতুন করে বৃদ্ধি পেয়েছে বলেও একটি ইঙ্গিত দিয়েছেন সেদেশের বিশেষজ্ঞরা। তাই লকডাউনের মেয়াদ শেষ করার পরিকল্পনাও বিবেচনা করতে পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। হ্যানকক জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন, তিনি ও বিশেষজ্ঞদল সমস্তি বিষয়গুলি খতিয়ে দেখে পরবর্তী সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবেন। 

ব্রিটেনের স্বাস্থ্য মন্ত্রী জানিয়েছেন, তথ্য বলছে করোনাভইরাসের টিকাগুলি ডেল্টা রূপের বিরুদ্ধে রীতিমত কার্যকর। কারণ সমীক্ষায় দেখা গেছে যাঁরা করোনা-ভ্যাকসিনের দুটি ডোজ নিয়েছেন তাঁরা ডেল্টা রূপটিকে প্রতিহত করতে সক্ষম হয়েছেন। ব্রিটেন এই মূহূর্তে দ্রুততার সঙ্গে করোনাভাইরাসের টিকা দিতে সক্ষম হচ্ছে না। তবে আগামী দিনে টিকা কর্মসূচিকে আরও শক্তিশালী করা হবে বলেও জানিয়েছেন। জন হফকিন্স বিশ্ব বিদ্যালয়ের তথ্য অনুসারে ব্রিটেন করোনা মাহামারিতে এপর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে ১,২৭,৮৩৬। যা বিশ্বের ষষ্ঠতম।