ব্রিটেন সহ ইউরোপের বেশ কয়েকটি দেশে শুরু হয়েছে করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় তরঙ্গ। তেমনই মনে করছেন বিজ্ঞানীরা। এই অবস্থায় করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রুখতে আরও কড়া হচ্ছে বিট্রেনের নিয়মকানুন। কিন্ত যেসব নাগরিকরা করোনাভাইরাস সংক্রান্ত স্বাস্থ্য বিধি ভাঙবেন তাঁদের বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ নেওয়া হবে বলেই জানিয়েছেন ইংল্যন্ডের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন। তিনি বলছেন নিয়ম লঙ্ঘন করলেই অভিযুক্তকে দিতে হবে ১০ হাজার পাউন্ড বা ১১ হাজার ইউরো। ভারতীয় মূল্য তা সাড় ৯ লক্ষ টাকা। 

শনিবার ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন এই কড়া বার্তা দিয়ে বলেছেন, করোনাভাইরাসের সংক্রমণের বিরুদ্ধে এক জোট হয়ে লড়তে হবে। সংক্রমণ যাতে না বাড়ে সেই জন্য দেশের মানুষকে আরও সতর্কতা অবলম্বনের পরামর্শ দিয়েছেন তিনি। আর তখনই তিনি বলেছেন করোনাভাইরাস সংক্রান্ত কোনও সরকারি নিয়ম লঙ্ঘন করা যাবে না। বরিস জনসন আরও বলেন যে ২৮ সেপ্টেম্বর থেকে কোনও ব্যক্তি যদি পরীক্ষার পর পজেটিভ হন তাহলে সংশ্লিষ্ট ব্যাক্তিকে জাতীয় স্বাস্থ্য পরিষেবার সঙ্গে যোগাযোগ করে তা জানাতে হবে। সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিকে কনট্র্যাক্ট ট্রেসিং প্রোগ্রামে অংশ নিতে হবে। এই ব্যক্তির আইসোলেশনে থাকা খুবই জরুরি বলে জানিয়েছেন তিনি। তিনি আরও বলেন করোনাভাইরাসের সংক্রমণ সংক্রান্ত নিয়ম পুঙ্খানুপুঙ্খ ভাবে মেনে চললেই অতিমারিকে হারনো সম্ভব হবে। 

নতুন নিয়ম অনুযায়ী ব্রিটেন করোনাভাইরাসের উপসর্গ যাদের ধরা পড়েছে তাদের ১০ দিনের জন্য সেল্ফ আইসোলেশনে থাকতে বলা হয়েছে। আর যেসব ব্যক্তি সংক্রমিতের সংস্পর্শে এসেছেন তাদের জন্য ১৪ দিনের সেল্ফ আইসোলেশন ধার্য করা হয়েছে। কিন্তু এই নিয়ম না মানলেই অভিযুক্তকে দিতে হবে  ১০ হাজার পাউন্ড। ব্রিটেনে ইতিমধ্যেই করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ৩লক্ষ ৯০ হাজার মানুষ। মৃত্যু হয়েছে ৪২ হাজার মানুষের। তাই করোনার দ্বিতীয় ঢেউ আছড়ে পড়ায় কিছুটা হলেও উদ্বেগ বাড়ছে প্রশাসনের অন্দরে।