বিজেপির টিকেটে এবার সরাসরি রাজনীতির আঙিনায় দেখা যাবে রুদ্রনীল ঘোষকে। তিনি ভবানীপুর বিধানসভা কেন্দ্রের প্রার্থী। বিজেপির দ্বিতীয় তালিকা স্থান পাওয়া আরও এক তারকা প্রার্থী হলেন পার্নো মিত্র। তিনি লড়াই করবেন বরাহনগর কেন্দ্র থেকে। 


রুদ্রনীল ঘোষ- টালিগঞ্জের পরিচিত নাম। ছাত্র জীবনে তিনি নাকি বাম রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত ছিলেন। পরবর্তীকালে রুদ্রনীল ঘোষকে একাধিকবার দেখা গেছে তৃণমূল কংগ্রেসের মঞ্চে। তবে তিনি সরাসরি তৃণমূলের রাজনৈতির সঙ্গ যুক্ত ছিলেন না। তৃণমূলের টিকিতে কোনও দিন প্রার্থীও হননি। কিন্তু তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের স্নেহধন্য ছিলেন। গত লোকসভা নির্বাচনেও ঘাসফুলের হয়ে প্রাচারে তিনি ছিলেন সামনের সারিতে। স্টার ক্যাম্পেনার বললেও খুব একটা ভুল হবে না। তৃণমূল সুপ্রিমো তাঁকে বৃত্তিমূলক শিক্ষা সংসদের সভাপতির পদে বসিয়েছিলেন। সেই সময়ই তাঁকে নিয়ে প্রচুর বিতর্ক তৈরি হয়েছিল। ওই পদে থাকার সময়ও একাধিক বিতর্কের মুখোমুখি হতে হয়েছিল তাঁকে। কিন্তু গত লোকসভা নির্বাচনের পর থেকেই ঘাসফুল শিবিরের সঙ্গে তাঁরা ঘনিষ্টতা কমে আসছিল। লকডাউন পর্বে তিনি সোশ্যাল মিডিয়ায় একাধিক পোস্ট করে জনপ্রিয় হয়েছিলেন। যাইহোক গঙ্গা নিয়ে অনেক জল বয়ে গেছে। জোড়াফুল ছেড়়ে তিনি এখন সিঙ্গেল ফুলে নাম লিখিয়েছেন। তাঁর এই দলবদল খুব একটা পুরনো নয়। তাতেই তিনি বিজেপির টিকিটে প্রার্থী হচ্ছেন। তাঁকে লড়াই করতে হবে পোড় খাওয়া রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব শোভনদেব চট্টোপাধ্যায়ের সঙ্গে। 


পার্নো মিত্র- বরাহনগরের বিজেপি প্রার্থী পার্নো মিত্র। ২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনের আগেই তিনি বিজেপিতে যোগ দিয়েছিলেন। তবে এবার এখনও পর্যন্ত বিজেপির হয়ে প্রচারে দেখা যায়নি তাঁকে। ঘনিষ্ট সূত্রে খবর তাঁর মা অসুস্থ। ভ্যাকসিন নেওয়ার পরই তিনি দলের হয়ে কাজ করতে চান। পাশাপাশি শ্যুটে ব্যস্ত থাকার কারণেই তিনি দলের হয়ে তেমন সময় দিতে পারছেন না। এরই মধ্যে বৃহস্পতিবার বিজেপি দ্বিতীয় দফার প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করে। সেখানেই দেখা যায় তাঁকে বরাহনগরের প্রার্থী করা হয়েছে। তাঁকে লড়াই করতে হবে তৃণমূল প্রার্থী তাপস রায়ের বিরুদ্ধে।