প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর বিরুদ্ধে কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধীর নতুন হাতিয়ার 'অ্যারেস্ট মি টু'(Arrest Me Too)। রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের মতে এক্ষেত্রে রাহুল গান্ধী সঙ্গে পেয়েছেন তাঁর বোন প্রিয়াঙ্কা গান্ধীকেও। এদিন রাহুল ও প্রিয়াঙ্কা দুজনেই টুইট করেন। আর সেখানে একটি ছবি পোস্ট করেন যাতে লেখা রয়েছে, মোদীজি আমাদের সন্তানদের ভ্যাকসিন কেন বিদেশে পাঠিয়েছেন? এই ছবির ক্যাপশানে দুই ভাইবোনই লিখেছেন মোদীজি আমাকেও গ্রেফতার করুন। তবে এক্ষেত্র রাহুলের থেকে এককাঠি এগিয়ে রয়েছেন প্রিয়াঙ্কা। তিনি অবশ্য ছবিটি তার ব্যবহার করেছেন তাঁর প্রোফাইল পিকচারে। 

কিন্তু কেন এজাতীয় মন্তব্য?
দিল্লিসহ গোটা দেশেই বৃদ্ধি পেয়েছে করোনা টিকার চাহিদা। এই পরিস্থিতিতে দিল্লিতে বেশ কয়েকটি পোস্টারও পড়েছে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সমালোচনা করে। সেখানে প্রশ্ন তোলা হয়েছে দেশের মানুশকে করোনা টিকা না দিয়ে কেন তা বিদেশ পাঠিয়ে দেওয়া হল। প্রধানমন্ত্রীর সমালোচনার অভিযোগ এখনও পর্যন্ত দিল্লি পুলিশ ১২ জনকে গ্রেফতার করেছে।  তারপর এই আন্দোলনে সামিল হয়েছেন কংগ্রেসের প্রথম সারির কয়েক জন নেতা। রয়েছেন পবন খেরে, জয়রাম রমেশের মত নেতারাও। 

তারপরই রাহুল গান্ধী ও প্রিয়াঙ্কা গান্ধী দুজনেই গ্রেফতার ও করোনা টিকা নিয়ে সমালোচনা শুরু করেন। তারই পরিপ্রেক্ষিতে তারা সোশ্যাল মিডিয়ায় বার্তা দেন। যদিও করোনাভাইরাসের সংকট নিয়ে রাহুল গান্ধী প্রথম থেকেই সরব হয়েছেন। নিত্য দিনই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর বিরুদ্ধে কোনও না কোনও অভিযোগ তুলে তিনি সরব হন। এটিও তারই অঙ্গ হিসেবে মনে করেছেন রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা।