বুধবার করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলায় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে আরও একটি চিঠি দিলেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। চিঠির প্রধান বিষয় 'বিদেশি সংস্থাগুলিকে দিয়ে ভ্যাকসিন তৈরি করানো হোক৷ তারজন্য প্রয়োজনে জমি দেবে রাজ্য সরকার৷'। মমতার চিঠির কিছু সময়ের মধ্যে আসরে নামে বিজেপি শিবির। মমতা বিরুদ্ধে দ্বিচারিতা ও দায়িত্ব এড়িয়ে যাওয়ার অভিযোগ তুলে সোশ্যাল মিডিয়ায় ট্যুইটে তোপ দাগলেন বিজেপি নেতা ও আইটি সেলের প্রধান অমিত মালব্য।

 

 

বুধবার প্রধানন্ত্রীকে দেওয়া চিঠিতে মুখ্যমন্ত্রী আরও একবার জোর দেন ভ্যাকসিন ও অক্সিজেনের সরবরাহের উপর জোর দেন। লেখেন, 'রাজ্যে ১০ কোটি মানুষের টিকার প্রয়োজন। সেখানে রাজ্যকে নামমাত্র ভ্যাকসিন দেওয়া হয়েছে।' বিদেশি সংস্থাগুলিকে দিয়ে ভ্যাকসিন তৈরি করা হয় যাতে, সে বার্তাও উল্লেখ করেছেন চিঠিতে। পাশাপাশি মমতা লিখেছেন, বিদেশি বা দেশি সংস্থা দিয়ে করোনার টিকা উৎপাদন করতে চাইলে পশ্চিমবঙ্গ সরকার জমি দিতে প্রস্তুত।' প্রধানমন্ত্রীকে পাঠানো চিঠিতে মমতা এও লিখেছেন, '২৪ ফেব্রুয়ারি টিকা কিনতে চেয়ে চিঠি দিয়েছিলাম। বিনামূল্যে রাজ্যবাসীর জন্য টিকাকরণ শুরু করতে চেয়েছিলান। কিন্তু, কোনও সাড়া পায়নি। হাসপাতালে বেড, অক্সিজেন, ওষুধ, টিকার ঘাটতি ভয়ঙ্কর আকার ধারণ করেছে, তাই ফের লিখছি।' মমতার চিঠির পরেই কেন্দ্রের বিরুদ্ধে সরব হয়েছে শাসক দলের অন্যান্য নেতা-নেত্রীরাও।

 

 

এরপর অমিত মালব্য মমতা কটাক্ষ করে ট্যুইটে লেখেন,'২৪ শে ফেব্রুয়ারি, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় প্রধানমন্ত্রীকে একটি চিঠি লিখেছিলেন যাতে পশ্চিমবঙ্গ সরকারকে তাদের নিজস্বভাবে ভ্যাকসিন কেনার অনুমতি দেওয়া হোক। এখন যেহেতু কেন্দ্রীয় সরকার প্রক্রিয়াটিকে বিকেন্দ্রীভূত করেছে, তখন মুখ্যমন্ত্রী নিজের দায়িত্ব এড়িয়ে যাচ্ছেন ও কেন্দ্রের কোর্টে বল ঠেলে দিতে চাইছেন'। করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলা নিয়ে বেশ কয়েক দিন ধরেই কেন্দ্র-রাজ্য তরজা চলছে। এদিনের মমতা চিঠি ও অমিত মালব্যর জবাব সেই তরজার আগুনে ঘৃতাহুতি করল বলেই মনে করছেন রাজনৈতিক মহল।