করোনাভাইরাসের সংক্রমণ যত বাড়ছে ততই চাহিদা বাড়ছে করোনা টিকার। ইতিমধ্যেই ১৮ উর্ধ্বদেরও টিকা গ্রহণের দরজা খুলে দিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার। তবে অধিকাংশ রাজ্যই তাদের কাছে প্রয়োজনীয় টিকা নেই বলে অভিযোগ তুলতে শুরু করেছে। এই পরিস্থিতিতে শুক্রবার স্বাস্থ্য মন্ত্রকে জানিয়েছেন ৯০ লক্ষেরও বেশি করোনা টিকার ডোজ রাজ্য ও কেন্দ্র শাসিত অঞ্চলগুলির কাছে রয়েছে। আর আগামী দুই থেকে তিন দিনের মধ্যে  আরও ১০ লক্ষ টিকার ডোজ পাঠান হবে। 

কেন্দ্রীয় সরকার শুক্রবার জানিয়েছে, এপর্যন্ত রাজ্য ও কেন্দ্র শাসিত অঞ্চলগুলিকে বিনামূল্যে ১৭.৩৫ কোটি ভ্যাকসিনের ডোজ সরবরাহ করেছে। শুক্রবার সকাল ৮টা পর্যন্ত পাওয়া তথ্যে ১৬ কোটিরও বেশি ডোজ রাজ্য ও কেন্দ্র শাসিত অঞ্চলগুলিতে পৌঁছে রয়েছে। এখনও পর্যন্ত ৯০ লক্ষেরও বেশি কোভিড ভ্যাকসিনের ডোজ রাজ্য ও কেন্দ্র শাসিত অঞ্চলগুলির কাছে মজুত রয়েছে। কিন্তু রাজ্যগুলির নেতিবাচক মনোভাবের জন্য সমস্যা তৈরি হচ্ছে। আগামী তিন দিনের মধ্যে আরও ১০ লক্ষ ডোজ রাজ্যগুলিকে দেওয়া হবে বলেও দাবি করা হয়েছে স্বাস্থ্য মন্ত্রকের তরফ থেকে। 

স্বাস্থ্য মন্ত্রক জানিয়েছে মহারাষ্ট্র, উত্তর প্রদেশ দিল্লিসহ ১০টি রাজ্যে দৈনিক সংক্রমণ ৭১.৮১ শতাংশের বেশি। শুক্রবার সকাল ৮টা পর্যন্ত এই রাজ্যে দেশে দৈনিক সংক্রমণ ৪ লক্ষের বেশি। মোট আক্রান্তের সংখ্য ২ কোটি ছাপিয়ে গেছে। দেশের প্রতিটি রাজ্যই কমবেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে মহামারির কারণে। কেন্দ্রীয় সরকার জানিয়েছে ১১ লক্ষ ৮০ হাজারেরও বেশি  ১৮-৪৪ বছর বয়স্কদের টিকা দেওয়া হয়েছে এখনও পর্যন্ত। সবথেকে বেশি টিকা দেওয়া হয়েছে মহারাষ্ট্রে। সেখানে কোটিরো বেশি মানুশকে টিকা প্রদান করা হয়েছে। বাংলার ওই বয়সের ২ হাজার ৭৫৭ জন টিকা পেয়েছেন। গত ২৪ ঘণ্টায় ২৩ লক্ষ টিকার ডোজ দেওযা হয়েছে। এখনও পর্যন্ত বিভিন্ন রাজ্যে স্বাস্থ্য কর্মী ও বয়স্কদের টিকা প্রদানের কাজ চলছে বলেও দাবি করেছে স্বাস্থ্য মন্ত্রক।