কোভিড-১৯ ভ্যাকসিনের ঘাটতি নিয়ে কেন্দ্রের দিকে আঙুল তুলেছিল মহারাষ্ট্র। তারপর থেকেই ভ্যাকসিন নিয়ে রীতিমতো কেন্দ্র-রাজ্য সংঘাতের পরিবেশ তৈরি হয়েছে। মহারাষ্ট্রের স্বাস্থ্য়মন্ত্রী রাজেশ টোপের বিরুদ্ধে আগেই মিথ্যা আতঙ্ক ছড়ানোর অভিযোগ এনেছিসেন কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী হর্ষ বর্ধন। টিকাদান নিয়ে রাজনীতিকরণের অভিযোগ এনেছিলেন তিনি। এরপর ন্যাশনাল হেলথ মিশনের পক্ষ থেকে সরাসরি মহারাষ্ট্রের স্বাস্থ্যমন্ত্রীর বিরুদ্ধে রাজ্যে টিকা বন্টনের ক্ষেত্রে অনিয়মের অভিযোগও আনা হল।

মহারাষ্ট্রের জনস্বাস্থ্য বিভাগের অতিরিক্ত মুখ্য সচিবকে লেখা একটি চিঠিতে হেলথ মিশনের অতিরিক্ত সচিব বিকাশ শীল জানিয়েছেন, মহারাষ্ট্রের স্বাস্থ্যমন্ত্রীর নিজের জেলা জালনা-তে বরাদ্দের বেশি টিকা দেওয়া হয়েছে বলে প্রকাশিত হয়েছে এক সর্বভারতীয় সংবাদপত্রের প্রতিববেদনে। মহারাষ্ট্রের অন্যান্য জেলার তুলনায় সেই জেলায় টিকা মজুত থাকার সংখ্যাও বেশি বলে জানান তিনি। এই বিষয়ে অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে মহারাষ্ট্রের জনস্বাস্থ্য বিভাগের অতিরিক্ত মুখ্য সচিবকে একটি তথ্যভিত্তিক প্রতিবেদন জমা দিতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন - লাগবে না কোভিড পজিটিভ রিপোর্ট - হাসপাতালে ভর্তিতে ৪ নতুন নির্দেশ, কী বলল কেন্দ্র

আরও পড়ন - জলে গুলে খেলেই সংক্রমণ-মুক্ত - করোনা-যুদ্ধের অস্ত্র দিল DRDO, অনুমোদন DGCI-এর

আরও পড়ুন - দিল্লি-গুজরাতে আতঙ্ক, করোনার সঙ্গে বাড়ছে আরও এক ভয়ঙ্কর সংক্রমণ - ব্ল্যাক ফাঙ্গাল ইনফেকশন

এর আগে, মহারাষ্ট্রের স্বাস্থ্যমন্ত্রী রাজেশ টোপে জানিয়েছিলেন, তাদের রাজ্যে আর মাত্র ২-৩ দিনের ভ্যাকসিনের স্টক রয়েছে। তাই তিনি কেন্দ্রের কাছে দ্রুত আরও টিকা সরবরাহ করার আহ্বান জানিয়েছিলেন। এরপর অন্ধ্রপ্রদেশ, ছত্তিশগড় ও ওড়িশার মতো আরও বেশ কয়েকটি অ-বিজেপি শাসিত রাজ্যও ভ্যাকসিনের ঘাটতি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছিল। যদিও, এই মুহূর্তে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকে টপকে ভারতই বিশ্বের দ্রুততম টিকাদানকারী দেশ। বর্তমানে ভারতে দৈনিক গড়ে ৩০ লক্ষের বেশি ডোজ ভ্যাকসিন দেওয়া হচ্ছে।