দিল্লির নিজামুদ্দিন তবলিগ জামাতের ধর্মীয় অনুষ্ঠানের যোগ সামনে আসার পর থেকেই এদেশে করোনা সংক্রমণের সংখ্যা দ্রুত বেড়েছে। গত কয়েকদিনে দেশে আক্রান্তের সংখ্যা বৃদ্ধির জন জামাতিদেরই দায়ি করছে দেশের একটা অংশ। এই বিষয়ে এবার সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হল জামিয়াত উলেমা হিন্দ।

এদেশে যখন করোনা নিজের থাবা বসিয়েছে সেই সময়ে পরিকল্পিত ভাবে তাঁদের ভিলেন করতে ভুয়ো খবর ছড়ানো হচ্ছে মুসলিম সমাজের বিরুদ্ধে। এমনটাই দাবি করছে জামিয়াত উলেমা হিন্দ। জামিয়াতের আইনি শাখার সেক্রেটারির হয়ে ইতিমধ্যে আইনজীবী ইজাজ মকবুল পিটিশন দায়ের করেছেন শীর্ষ আদালতে। জামিয়াতের অভিযোগের আঙুল সংবাদমাধ্যমের একাংশের দিকেও রয়েছে।  

বয়স কেবল একটা সংখ্যা মাত্র, করোনা যুদ্ধে জিতে ফের একবার প্রমাণ দিলেন অশীতিপর মনমোহন সিং

ট্রাম্পের হুঁশিয়ারিতেই উঠে গেল নিষেধাজ্ঞা, ম্যালেরিয়ার ওষুধের ফের রফতানি শুরু করছে ভারত

ভিক্ষের পর এবার 'বন্ধু' মোদীকে হুমকি ট্রাম্পের, ওষুধ না পাঠালে পরিণতি হবে মারাত্মক

পিটিশনে উল্লেখ করা হয়েছে, ' এই ধরণের মিথ্যা খবর শুধু সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতিতে ভাঙন ধরাচ্ছে তাইন নয়, গোটা দেষে এক সম্প্রদায়ের মানুষের প্রতি ঘৃণার সৃষ্টি করছে। এর ফলে ইসলাম সম্প্রদায়ের মানুষদের স্বাধীনতা হরণ ও প্রাণ সংশয় দেখা দিচ্ছে। এটা ভারতীয় সংবিধানের ২১ নম্বর ধারার পরিপন্থী।'

সেই সঙ্গে সংগঠনের পক্ষ থেকে শীর্ষ আদালতের কাছে অনুরোধ করা হয়েছে, যাতে নিজামুদ্দিন কাণ্ড নিয়ে কোনও সংবাদমাধ্যম যেন ফেক নিউজ পরিবেশন না করে। এক্ষেত্রে সুপ্রিমকর্টো যেন কঠোর নিয়মিবিধি সংবাদমাধ্যমের জন্য লাগু করে। 

এবিষয়ে উল্লেখঅয,  মার্চ মাসের প্রথম দু'সপ্তাহে দিল্লির নিজামুদ্দিন মারকাজে তবলিগ  জামাতের সদর দফতরে দেশ -বিদেশ থেকে আসা প্রায় ৯০০০ জন জড়ো হয়েছিলেন। সোমবারই স্বাস্থ্যমন্ত্রক সূত্রে জানান হয়েছে  এই মুহূর্ত দেশে আক্রান্ত ৪০০০ জনের মধ্যে অন্তত ১৪৪৫ জনই ওই জমায়েতে সংস্পর্শে এসে  সংক্রমিত হয়েছেন।