শনিবার করোনাভাইরাস-এর  বিরুদ্ধে লড়াইয়ে যোগ দিল টাটা গ্রুপ, টাটা ট্রাস্ট এবং টাটা সন্স। শুধু যোগ দিল বললে ভুল হবে, বলা ভালো ভারতের শক্তি একধাক্কায় অনেকটা বাড়িয়ে দিল ভারতের এই সবচেয়ে পুরনো শিল্পগোষ্ঠী। শনিবার এক ইনস্টাগ্রাম পোস্টে  চেয়ারম্যান রতন টাটা জানিয়েছেন সব মিলিয়ে টাটা গোষ্ঠী  করোনভাইরাস ত্রাণ তহবিলের ১৫০০ কোটি টাকার অনুদান দেবে।

এই তহবিল চিকিৎসা কর্মীদের সংক্রমণ প্রতিরোধী সরঞ্জাম সরবরাহ, ক্রমবর্ধমান করোনা রোগীদের চিকিৎসার জন্য কৃত্রিম শ্বাসযন্ত্রের ব্যবস্থা, করোনাভাইরাস-এর পরীক্ষার কিট এবং যারা ইতিমধ্যে ভাইরাসটি আক্রান্ত হয়েছেন, তাদের চিকিৎসার সুবিধার্থে ব্যবহার করা হবে। এখানেই শেষ নয়, টাটা গোষ্ঠীর পক্ষ থেকে স্বাস্থ্যকর্মীদের এবং সাধারণ জনগণকে করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে ক্ষমতায়িত করতে বিশেষ প্রশিক্ষণও দেবে।

রতন টাটা এদিন তাঁর পোস্টে বলেছেন, 'কোভিড-১৯ সংকট মানব জাতির অন্যতম কঠিন চ্যালেঞ্জ। এর মোকাবিলা করতে, অবিলম্বে জরুরি সাজসরঞ্জাম-এর রসদের প্রয়োজন। এদিন প্রথমে টাটা ট্রাস্ট করোনাভাইরাস ত্রাণ তহবিলে ৫০০ কোটি টাকারও বেশি অনুদান দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেয়। পরে টাটা সনস, কোভিড -১৯ এর মোকাবিলার জন্য আরও অতিরিক্ত এক হাজার কোটি টাকার সহায়তা দেওয়ার কথা ঘোষণা করে। অর্থসাহায্যের পাশাপাশি টাটা সন্সের চেয়ারম্যান এন চন্দ্রশেকরন জানিয়েছেন, টাটা গোষ্ঠী কোভিড-১৯'এ আক্রান্তদের প্রয়োজনীয় ভেন্টিলেটরও নিয়ে আসছে  এবং শিগগিরই ভারতেও যাতে এগুলি তৈরি করা যায় তার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছে।

এর আগেই কোভিড-১৯'এর বিরুদ্ধে লড়াইয়ে সামিল হয়েছিল মুকেশ আম্বানির রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রিজ এবং আনন্দ মাহিন্দ্রার মাহিন্দ্রা গোষ্ঠী। রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড সোমবার মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী ত্রাণ তহবিলে পাঁচ কোটি টাকা সাহায্য দিয়েছে। স্বাস্থ্যকর্মীদের সহায়তার জন্য তারা প্রতিদিন ১,০০,০০০ ফেস-মাস্ক এবং হ্যাজম্য়াট স্যুট এবং গার্মেন্টসের মতো বিপুল সংখ্যক ব্যক্তিগত সুরক্ষামূলক সরঞ্জাম (পিপিই) উৎপাদন করবে। এছাড়া, মুম্বইয়ের সেভেন হিলস হাসপাতালে করোনা রোগীদের চিকিৎসার জন্য  বিএমসি-এর সহযোগিতায় স্যার এইচ এন রিলায়েন্স ফাউন্ডেশন হাসপাতাল কোভিড -১৯ রোগীদের জন্য একটি ১০০ শয্যার চিকিৎসাকেন্দ্র স্থাপন করেছে।

অন্যদিকে, মাহিন্দ্রা গোষ্ঠী কোভিড-১৯ রোগীদের স্বাস্থ্যসেবার জন্য গুরুত্বপূর্ণ ভেন্টিলেটর সরবরাহের জন্য কাজ করছে। কোভিড -১৯ রোগীদের চিকিৎসার জন্য মাহিন্দ্রার রিসর্টগুলিও খুলে দেওয়া করেছে। এছাড়া আইটিসি, হিন্দুস্তান লিভার, এবং গোদরেজ সহ বেশ কয়েকটি সংস্থা সরকারের পাশে দাঁড়ানোপ প্রতিশ্রুতি দিয়েছে।