'আমাদের কিছুই বলার নেই।' প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্সে যোগ না দেওয়ায় মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সমালোচনা করলেন রাজ্যপাল। টুইটে তিনি লিখেছেন, 'প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বে করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধে ভারতের লড়াইয়ে গোটা বিশ্বে প্রশংসিত হচ্ছে। ভিডিও কনফারেন্সের গরহাজির থাকার সিদ্ধান্ত নিয়ে সঠিক কাজ করেননি মুখ্যমন্ত্রী। এটা রাজ্যের স্বার্থের পরিপন্থী।'

তখনও করোনা প্রতিহত করতে দেশজুড়ে লকডাউন জারি হয়নি। দিল্লি থেকে ভিডিও কনফারেন্সের সমস্ত রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে দীর্ঘ বৈঠক করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। বৈঠকে হাজির ছিলেন এ রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও। বৃহস্পতিবার ফের ভিডিও কনফারেন্স করলেন মোদি, কিন্তু গরহাজির থাকলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কেন? বুধবার নবান্নে সাংবাদিক সম্মেলনে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, 'আগের দিন আটটা রাজ্যকে তিন মিনিট করে বলতে দিয়েছিল। সেদিন আমি বাংলার কথা বলেছিলাম। কাল আমাদের বলার কিছু নেই। অন্য ১০টা রাজ্য বলবে। কালকে বাংলা জাস্ট অডিয়েন্স। তাই মুখ্যসচিব থাকবেন। যদি কোনও তথ্য চায় তাহলে উনি দিয়ে দেবেন।' তবে বিষয়টি নিয়ে যে জলঘোলা হতে পারে, তা আঁচ করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। তিনি স্পষ্ট বার্তা ছিল, 'এটাকে আবার অন্য ভাবে নেবেন না যেন! কাল যখন আমাদের বলারই কিছু নেই তাই ওই সময়টা আমি অন্য কাজ করব।'  বিজেপি অবশ্য় টিপ্পনি করতে ছাড়েনি। আর এবার প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্সে মুখ্যমন্ত্রীর গরহাজিরা নিয়ে মুখ খুললেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়ও। 

 

উল্লেখ্য, দিন কয়েক আগেই রাজনীতির উর্ধ্বে গিয়ে করোনা বিরুদ্ধে লড়াইয়ে শামিল হওয়ার জন্য কেন্দ্র ও রাজ্যকে আহ্বান জানিয়েছেন রাজ্যপাল। প্রশংসা করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী ও মুখ্যমন্ত্রীরও।