করোনাকে কীভাবে বাগে আনা সম্ভব? গোটা বিশ্বে এখন মহার্ঘ্য হয়ে উঠেছে হাইড্রক্সিক্লোরোকুইন। আচার্য প্রফুল্লচন্দ্র রায়ের অবদানের কথা স্মরণ করিয়ে দিলেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়। টুইটে তিনি লিখেছেন, 'কোভিড-১৯-এর চিকিৎসার জন্য বিশ্বের হাইড্রক্সিক্লোরোকুইন-এর কদর বেড়েছে। আমি গর্বিত যে, এর পিছনে বাংলার এক মানুষের অবদান রয়েছে।'

আরও পড়ুন: রাজ্যেই বানাবে এবার করোনার ওষুধ, হাইড্রক্সিক্লোরোকুইন তৈরী করবে 'বেঙ্গল কেমিক্যাল'

করোনা সংক্রমণ ছড়িয়েছে পড়েছে বিশ্বের সর্বত্রই। বিপদে পড়েছে আমেরিকাও। সবচেয়ে বেশি করোনা আক্রান্তের বাস এখন মার্কিন মুলুকেই! চার লক্ষ ছাড়িয়ে সংখ্যাটি এখন পাঁচ লক্ষের দিকে এগোচ্ছে। সংক্রমণ কীভাবে ঠেকাতে যাবে! রীতিমতো হিমশিম অবস্থা মার্কিন প্রশাসনের। পরিস্থিতি এমন জায়গায় পৌঁছেছে যে, হাইড্রক্সিক্লোরোকুইন না পাঠালে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে দেখে নেওয়ার হুমকি দিয়েছিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। বিপদের সময়ে অবশ্য মুখ ফিরিয়ে নেয়নি ভারত। বরং ট্রাম্পের আবদার মেনে হাইড্রক্সিক্লোরোকুইন রফতানিতে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করে নিয়েছেন মোদি সরকার। এদেশ থেকে  ওষুধ  যাচ্ছে ইজরায়েলেও।

আরও পড়ুন: রাজ্যে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে ৮৯ ও মৃত ৫, শুক্রবার নবান্নে জানালেন মুখ্যসচিব

আরও পড়ুন: করোনার কোপে চৈত্র সেল, ১০০০ কোটি টাকার বেশি আর্থিক ক্ষতি মুখে ব্যবসায়ীরা

হাইড্রক্সিক্লোরোকুইন উৎপাদনে পিছিয়ে নেই বাংলাও। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নিজেই মুখ্যসচিব রাজীব সিনহাকে বিষয়টি দেখতে বলেছিলেন। শেষপর্যন্ত বেঙল কেমিক্যালসকে ওষুধ তৈরির বরাত দেওয়ার নির্দেশ দেন তিনি। সংস্থার প্রতিষ্ঠাতা আচার্য প্রফুল্লচন্দ্র সরকারকে নামাঙ্কিত স্ট্যাম্পে ছবি-সহ টুইট করেছেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়।