করোনাভাইরাস সংক্রমণের জেরে ক্রমেই বদলে যাচ্ছে এতদিনের চেনা পৃথিবীটা। অন্য অনেক কিছুর মতো বদলে যাচ্ছে সন্ত্রাসবাদের চেহারাটাও। করোনাভাইরাস সংক্রমণ আতঙ্কের জেরে এখন আর সন্ত্রাস ছড়াতে গুলি-বন্দুক-আরডিক্স লাগছে না। সামান্য থুতুই হয়ে উঠেছে জৈব অস্ত্র। অস্ট্রেলিয়ার সিডনিতে সম্প্রতি একজন পুলিশ অফিসারের গায়ে থুতু দেওয়ার অভিযোগে এক মহিলাকে গ্রেফতার-ও করা হয়েছে।

ঘটনাটি ঘটেছে গত শুক্রবার। জানা গিয়েছে, শুক্রবার বিকেলে দক্ষিণ-পশ্চিম সিডনির গ্রীনাক্রেতে ট্রাফিক আইন ভেঙেছিলেন এক মুসলিম মহিলা। যে রাস্তায় গাড়ির সর্বোচ্চ গতিসীমা বাঁধা ছিল ঘন্টায় ৫০ মিটারে, লকডাউনের জেরে সেই রাস্তা ফাঁকা পেয়েই ওই মহিলা ১২০ কিলোমিটার প্রতিঘন্টা বেগে গাড়ি চালাচ্ছিলেন। ওইভাবে তিনি একটি রেড লাইট বিধিও ভাঙেন। এরপরই পুলিশ তাঁর গাড়ি থামায়। তাঁকে গাড়ি থেকে নামতে বলায় তিনি অস্বীকার করেন বলে অভিযোগ। তিনি দাবি করেন, তিনি কোভিড-১৯'র পরীক্ষার জন্য যাচ্ছেন।

এই ঘটনার একটি ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে। ওই ভিডিওতে, দেখা যাচ্ছে, ওই মুসলিম মহিলাকে গাড়ি থেকে নামতে বাধ্য করার পরই তিনি ওই পুলিশকর্মীর উপর প্রথমবার থুতু ছেটান। পুলিশকর্মীকে বলতে শোনা আর যদি তাঁর গায়ে থুতু দেওয়া হয়, তাহলে ওই মহিলাকে তিনি মাটিতে পেরে ফেলবেন। এরপরও ওই মহিলা ফের একবার ওই পুলিশ অফিসারের মুখে থুতু দেন এবং পুলিশটি তাঁকে সত্যি সত্যি মাটিতে ফেলে দেয়।

এই ভিডিওটি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হতে, নেটিজেনরা একযোগে ওই মহিলার সমালোচনা করেছেন। এমনকী, তাঁকে করোনাভাইরাস জিহাদি-ও বলেছেন অনেকে। করোনাভাইরাস সংক্রমণের ভয় দেখিয়ে পুলিশের মুখে থুতু দেওয়াকে জৈব সন্ত্রাস ছড়ানো হিসাবেই দেখা হচ্ছে।

বস্তুত, ভারতের বেঙ্গালুরুতেও ওই শুক্রবারই ইনফোসিস-এর এক কর্মচারীর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মানুষকে, প্রকাশ্যে লোকের মুখে গিয়ে হাঁচি দিতে এবং অতিসংক্রামক কোভিড-১৯ রোগ ছড়িয়ে দিতে আহ্বান করার জন্য গ্রেফতার করা হয়েছে। ওই সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারকে শনিবার ইনফোসিস সংস্থা বরখাস্তও করেছে। সংস্থাটি বলেছে ওই ব্যক্তির পোস্ট তাদের 'আচরণবিধি এবং দায়িত্বশীল সোশ্যাল শেয়ারিং-এর প্রতিশ্রুতির বিরুদ্ধে।

এই সব দেখেশুনে অনেকেই বলছেন, এক নতুন রূপে পৃথিবীকে ফিরল জৈব সন্ত্রাস। একটা সময়ে অ্যানথ্রাক্স-এর ভয়ে কাঁপত পৃথিবীর শক্তিশালী দেশগুলি। কিন্তু এখন, সন্ত্রাস ছড়ানোটা অনেক সহজ। বলা যেতে পারে মুখের মধ্যেই রয়েছে। হাঁচি, কাাশি বা শুধু একটু থুতু ছিটিয়ে দিলেই হল।