তাহলে কি সত্যিই চিনের কথাতেই ওঠাবসা করছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা? প্রশ্নটা আরও একবার উঠেই গেল। করোনাভাইরাস মহামারির উৎসের অনুসন্ধানে চিন সফরে গিয়েছিল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার একটি গবেষক দল। চিনের বিভিন্ন জায়গায় গেলেও তারা উহান শহরেই যায়নি, যেখানে গত বছর ডিসেম্বর মাসে প্রথম করোনা সংক্রমণের খবর পাওয়া গিয়েছিল। কাজেই আরও একবার প্রশ্নের মুখে হু-এর কার্যকলাপ।

এই অবস্থায় মুখ রক্ষার্থে হু-এর মুখপাত্র ক্রিশ্চান লিন্ডমায়ার বলেছেন, কোভিড-১৯'এর উত্স অনুসন্ধানের যাওয়া দলের সদস্যরা উহানের বিজ্ঞানীদের সঙ্গে 'বিস্তর আলোচনা এবং মতবিনিময়' করেছেন। মহামারি গবেষণা, করোনার জৈবিক এবং জেনেটিক বিশ্লেষণ এবং প্রাণী স্বাস্থ্য গবেষণা সম্পর্কিত সমস্ত সর্বশেষ তথ্য তাঁরা উহানের বগবেষকদের কাছ থেকে সংগ্রহ করেছেন। উহান-এর ভাইরোলজিস্ট এবং বিজ্ঞানীদের সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্সে তাঁদের আলোচনাও হয়েছে।

তবে মহামারির উৎস হিসাবে চিনকে বাঁচানোর প্রচেষ্টা বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এই প্রথম করচে তা নয়। চলতি বছরের মে মাসে এই লিন্ডমিয়ার-ই চিনের উহান থেকেই মহামারির উৎস কিনা তাই নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিলেন। তিনি জানিয়েছিলেন, ডিসেম্বর মাসে ফ্রান্সে এমন কিছু কোভিড মামলা পাওয়া গিয়েছিল, যার সঙ্গে  চিনের যোগসূত্র পাওয়া যায়নি। করোনার উৎস সন্ধানে প্রতিটি দেশের ২০১৯ সালের নভেম্বর-ডিসেম্বর মাসের অ্যাটিপিকাল নিউমোনিয়া বা অস্বাভাবিক নিউমোনিয়ার মামলাগুলি খতিয়ে দেখার পরামর্শ দিয়েছিলেন। তাঁর সেই উক্তি উদ্ধৃত করে চিনা বিদেশ মন্ত্রকের মুখপাত্র হুয়া চুনিং বলেছিলেন কোভিড নিয়ে একেবারে নতুন ছবি উঠে এসেছে।