করোনাভাইরাস সংক্রমণ রুখতে ২১ দিনের লকডাউইনের কথা ঘোষণা করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। এই পরিস্থিতিতে ব্যপক ক্ষতিগ্রস্ত দেশের সাপ্লাই লাইন। কিন্তু পরিস্থিতি স্বাভাবিক করতে লকডাউনের দ্বিতীয় দিনেই আর্থক প্যাকেজ ঘোষণা করল কেন্দ্র। কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমন জানিয়েছেন পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে বদ্ধপরিকর কেন্দ্রীয় সরকার। অর্থমন্ত্রকের প্রতিমন্ত্রী অনুরাগ ঠাকুরকে পাশে বসিয়েই সাংবাদিক সম্মেলন করেন অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমন। তিনি বলেন অভিবাসী শ্রমিক, দারিদ্রসীমার নিচে বসবাসকারী প্রায় ৮০ কোটি মানুষের জন্যই ১লক্ষ ৭০ হাজার কোটি টাকার বিশেষ প্যাকেজের কথা ঘোষণা করা হচ্ছে। 

 

নির্মলা সীতারমন জানিয়েছেন,  দারিদ্রসীমার নিচে বসবাসকারী মানুষ বিনামূল্য ৫ কিলো চাল অথবা গম পেতেন। বর্তমান সময় তাঁদের অতিরিক্ত আরও ৫ কেডি করে চাল অথবা গম দেওয়া হবে। সঙ্গে ১ কেজি করে ডালও দেওয়া হবে। যে এলাকায় যে ধরনের ডাল উৎপন্ন হয় সেই এলাকায় সেই ডালই বিলি করা হবে। শ্রমিকদের স্বার্থে প্রভিডেন্ট ফান্ডেরও নিয়ম বদল করা হয়েছে। নির্দিষ্ট শ্রমিকরা চাইলে প্রভিডেন্ট ফান্ড থেকে তিন মাসের টাকা অগ্রিম বেতন হিসেবে নিতে পারেন। একই সঙ্গে জানান হয়েছে কর্মচারী প্রভিডেন্ট ফান্ডের ২৪ শতাংশ টাকা কেন্দ্র দেবে। একশো দিনের শ্রমিকদেরও মজুরি বাড়িয়ে ২০২ টাকা করা হয়েছে। 

মহিলাদের জন্যও বিশেয ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। জনধন যোজনায় যেসবব মহিলার অ্য়াকাউন্ট রয়েছে আগামী তিন মাস তাঁদের ৫০০ টাকা দেওয়া হবে। কেন্দ্রীয় সরকারের এই সিদ্ধান্ত উপকৃত হবেন ২০ কোটি মহিলা। প্রধানমন্ত্রীর উজ্বলা প্রকল্পের আওয়াত থাকা বিপিএল পরিবারগুলি আগামী তিন মাস বিনামূল্য রান্নার গ্যাসের সিলিন্ডার পাবে। বয়স্ক বিধবা ও প্রতিবন্দ্বী ভাতা যাঁরা পান তাঁদেরও অতিরিক্ত ১০০০ টাকা দেওয়া হবে। দুই কিস্তিতে তাঁরা এই টাকা পাবেন। 

ভারতের অন্নদাতাদের জন্যই বিশেষ আর্থিক সুবিধের কথা ঘোষণা করেছে কেন্দ্র। প্রধানমন্ত্রীর গরিব কল্যাণ প্রকল্পের আওতায় থাকা ব্যক্তিরা বছরে ৬ হাজার টাকা করে পান। বর্তমান সময়ে তাঁদের আরো ২ হাজার টাকা দেওয়া হবে।