লকডাউনে বিতর্কিত মন্তব্য করে একাধিকবার সংবাদ শিরোনামে উঠে এসেছেন পাকিস্তানের প্রাক্তন পেসার শোয়েব আখতার। কখনও ধোনির অবসর  নিয়ে, কখনও আবার ভারত-পাক সিরিজ নিয়ে, এছাড়াও একাধিক ইস্যুতে বিতর্কিত মন্তব্য করেছেন রাওয়ালপিন্ডি এক্সপ্রেস। ক্রিকেট জীবনেও একাধিকবার বিতর্কে জড়িয়েছেন পাক পেসার। এবার শোয়েবের রোষের মুখে পড়ল ক্রিকেটের সর্বোচ্চ নিয়ামক সংস্থা আইসিসি। শুধু তীব্র কড়া ভাষায় আক্রমণই নয়,সরাসরি শোয়েব আখতার বলেন, গত দশ বছর ধরে সফলভাবে ক্রিকেটকে শেষ করে দিয়েছে আইসিসি। বিশেষ করে সাদা বলের ক্রিকেটকে।

আরও পড়ুনঃকর মকুব না হলে বিশ্বকাপ আয়োজনের দায়িত্ব কেড়ে নিতে পারে, বিসিসিআইকে হুঁশিয়ারী আইসিসির

লকডাউনে সম্প্রতি একটি ক্রিকেট ওয়েবসাইটে সাক্ষাৎকার দেন শোয়েব আখতার। সেই শোয়ে সঞ্চালকের ভূমিকায় ছিলেন প্রাক্তন ভারতীয় ক্রিকেটার  সঞ্জয় মঞ্জরেকর। মঞ্জরেকর রাওয়ালপিন্ডি এক্সপ্রেসকে জিজ্ঞাসা করেছিলেন যে, সীমিত ওভারের ক্রিকেটে ফাস্ট বোলারদের প্রভাব কেন কমে আসছে? প্রশ্ন শুনেই মেজাজ হারান শোয়েব। কার্যত চিৎকার করে বলেন, আইসিসি এমন কিছু ‘প্লেয়িং কন্ডিশন’ তৈরি করেছে, যাতে ক্রিকেটটা শেষ হয়ে যাচ্ছে। বিশেষ করে সাদা বলের ক্রিকেট। শোয়েবের মতে, ক্রিকেট ক্রমশ ব্যাটসম্যানদের খেলা হয়ে পড়ছে।গত দশ বছরে আইসিসি খুব সফলভাবে ক্রিকেটকে শেষ করছে। আমি তো ওদের বাহবা দেব! যা করতে চেয়েছিল, দারুণ ভাবে করতে পেরেছে। 

আরও পড়ুনঃগোলাপী বলে ভারতের বিরুদ্ধে আগুন ঝড়াতে মুখিয়ে রয়েছেন মিচেল স্টার্ক

আরও পড়ুনঃকরোনা যুদ্ধে নীল-সাদা জার্সি ছেড়ে খাকি উর্দি গায়ে রাস্তায় জতীয় মহিলা ফুটবলার ইন্দুমতি

বর্তমানে সাদা বলের ক্রিকেটে প্রতি ইনিংসে দুটি করে নতুন বল ব্যবহার করা হয়। বৃত্তের বাইরে মাত্র ৪ জন ফিল্ডার রাখা যায়। ‘রাওয়ালপিন্ডি এক্সপ্রেস’ বলেছেন, ‘‘আমি বার বার বলে আসছি, ওভার পিছু এক বাউন্সারের নিয়মে বদল আনা উচিত। এখন তো দুটো নতুন বল আর বৃত্তের বাইরে মোটে চারজন ফিল্ডার থাকে। বারবার বলেছি ওভার পিছু বাউন্সারের সংখ্যা বাড়াও। এখন ওভারে একটা বাউন্সার দেওয়া যায়। তাতে কী হবে?  আইসিসিকে দয়া করে জিজ্ঞেস করো, গত দশ বছরে ক্রিকেটের মান বেড়েছে না কমেছে? সেই সচিন বনাম শোয়েব লড়াই কোথায়?’’এছাড়াও একাধিক ইস্যুতে আইসিসিকে আক্রমণ করেন শোয়েব আখতার।