নাগরিকত্ব আইন নিয়ে উত্তাল রাজ্য রাজনীতি। পথে নেমেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বাংলায় সিনেমা জগতের প্রথমসারির তারকা বা ক্রীড়া ব্যক্তিত্বরা কিন্তু এখনও পর্যন্ত বিতর্কিত আইন নিয়ে একটি শব্দও খরচ করেননি। প্রকাশ্যে নাগরিকত্ব আইনে বিরোধিতা করলেন বিসিসিআই সভাপতি সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের মেয়ে সানা। সোশ্যাল মিডিয়ায় স্টেটাস দিয়ে বোঝাতে চাইলেন,  মোদী জমানা এ দেশে কেউই নিরাপদ নন। মুসলিমদের আক্রান্ত হবেন হিন্দুরাও! এমনকী মোদী সরকারকে ফ্যাসিস্ট শক্তির সঙ্গে তুলনা করেছেন সৌরভ-তনয়া। 

সংসদের সংখ্যাগরিষ্ঠতা জোরে বিল পাস করিয়ে নিয়েছে  মোদী সরকার। রাষ্ট্রপতি অনুমোদনের পর বিলটি এখন আইনে পরিণত হয়েছে। কিন্তু, ঘটনা হল, নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন নিয়ে এখন দেশজুড়ে রাজনৈতিক অস্থিরতা তুঙ্গে।  আর এ রাজ্যে তো  বিতর্কিত আইনে প্রতিবাদে আন্দোলনে নামে রীতিমতো তাণ্ডব চলেছে। কোথাও রাস্তায় একে এক বাস জ্বালিয়ে দিয়েছেন বিক্ষোভকারীরা, কোথাও আবার স্টেশনে পুড়েছে ট্রেন। আন্দোলনে ধাক্কায় রাজ্যে বিপর্যস্ত রেল পরিষেবা। সোমবার থেকে আবার লাগাতার আন্দোলনে নেমেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বুধবারও হাওড়া ময়দান থেকে ধর্মতলা পর্যন্ত মিছিল করেছেন তিনি।  কিন্তু বাংলার সিনেমাজগতের প্রথমসারির তারকাই বলুন কিংবা ক্রীড়া ব্যক্তিত্ব, বিতর্কিত এই নিয়ে নীরবতা বজায় রেখেছেন সকলেই। চুপ থাকতে পারলেন না সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের মেয়ে সানা। সোশ্যাল মিডিয়ায় তাঁর স্টেটাস রীতিমতো ভাইরাল হয়ে গিয়েছে।

সোশ্যাল মিডিয়া কী স্টেটাস দিয়েছেন সানা গঙ্গোপাধ্যায়? খুশবন্ত সিং-এর লেখা 'দ্য এন্ড অফ ইন্ডিয়া' বই থেকে একটি একটি উক্তি তুলে ধরেছেন তিনি। উক্তিটি হল,  'প্রত্যেক ফ্যাসিস্ট শক্তিই প্রথমে কোনও একটি জাতি বা সংগঠনের প্রতি ভীতির সৃষ্টি করে। এটা একটি জাতি বা সংগঠন দিয়ে শুরু হলেও, এখানেই থেমে থাকে না। আজ যাঁরা ভাবছেন, আমরা তো এদেশের হিন্দু আমাদের আবার কী বিপদ? যা সব সমস্যা তা তো মুসলিমদের। তাঁদেরও বিপদ আসবে। মোটেও ভাববেন না আপনি বেঁচে গিয়েছেন। সঙ্ঘপরিবার ইতিমধ্যেই বাম মনস্ক ইতিহাসবিদদের টার্গেট করা শুরু করেছে। এর পর হয়তো যে সব মেয়েরা স্কার্ট পরে তাঁদের উপর ওদের ঘৃণা আছড়ে পড়বে। যাঁরা মাংস খায়, যাঁরা মদ্যপান করে, তাঁদের সবাইকে টার্গেট করা হবে।” সোজা বাংলায়, সানা বোঝাতে চেয়েছেন, মোদী জমানা এদেশের এই দেশে কেউ নিরাপদ নন। তবে কিছুক্ষণের মধ্যে অবশ্য স্টেটাসটি মুখেও দেন সানা। কিন্তু ততক্ষণে তা সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে গিয়েছে।