ভোট নিয়ে টানটান উত্তেজনা সারা দেশে। সপ্তম দফার ভোটই অন্তিম ভাবে নির্ধারণ করবে, কে ক্ষমতার আসনে বসতে চলেছে। সপ্তম তথা শেষ দফায় ৫৯টি আসনে ভোট পড়তে চলেছে। ৮ রাজ্যের মানুষ এদিন নিজেদের রায় দিতে চলেছে। এই ৮ রাজ্যের মধ্যে রয়েছে পশ্চিমবঙ্গ, বিহার, ঝাড়খণ্ড, মধ্যপ্রদেশ, পঞ্জাব, উত্তরপ্রদেশ, চণ্ডীগড়, হিমাচল প্রদেশ।

৫৪৩টি আসনের মধ্যে ইতিমধ্যেই ভোট হয়ে গিয়েছে ৪৮২টি কেন্দ্রে। বাকি আসনগুলির জন্য় ভোট হবে আগামী ১৯ মে। ১৯ মে যে ৫৯টি আসনে ভোট হতে চলেছে এর মধ্য়ে ৪০টি আসনে ২০১৪ সালে জয়ী হয়েছিল গেরুয়া শিবির। বিহার, হিমাচল প্রদেশ, ঝাড়খণ্ড, মধ্যপ্রদেশ, উত্তরপ্রদেশ ও চণ্ডীগড়, এই রাজ্যগুলির মোট ৪০ আসনে জয়ী হয়েছিল মোদী বাহিনী। কিন্তু  পশ্চিমবঙ্গের ৯টি আসনের কোনওটিতেই ২০১৪-য় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে পিছনে ফেলে জায়গা করে নিতে পারেনি বিজেপি। 

সপ্তম দফায় পশ্চিমবঙ্গে যে আসনগুলিতে ভোট হবে, সেই প্রতিটি কেন্দ্রেই জয়ী হয়েছিল তৃণমূল। কিন্তু সেই কেন্দ্রগুলিতে এবার নিজেদের দখলে আনতে জোর কদমে প্রচার চালিয়েছে গেরুয়া শিবির। এই কেন্দ্রগুলির মধ্যে রয়েছে ডায়মন্ড হারবার, যাদবপুর, দক্ষিণ কলকাতা, উত্তর কলকাতা. দমদম, বারাসাত, বসিরহাট, জয়নগর, মথুরাপুর। এই কেন্দ্রগুলিতেও নিজেদের আধিপত্য বিস্তারের স্বপ্ন দেখছেন মোদী। 

এছাড়াও এদিন ৫৯ টি কেন্দ্রের মধ্যে ২৪ টি কেন্দ্র বেশ গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করা হচ্ছে, কারণ এই ২৪ কেন্দ্রে বর্তমান সাংসদরাই ক্ষমতা ধরে রাখতে পারবেন কি না তা নিয়ে ধন্ধ রয়েছে। বারাণসী নিয়ে আত্মবিশ্বাসী প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। 

দেখে নেওয়া যাক কোন রাজ্যে কটি কেন্দ্র রয়েছে-

বিহার- ৮ 
হিমাচল প্রদেশ- ৪ 
ঝাড়খণ্ড- ৩
মধ্যপ্রদেশ- ৮
পঞ্জাব- ১৩
উত্তরপ্রদেশ- ১৩
পশ্চিমবঙ্গ- ৯ 
চণ্ডীগড়- ১

প্রসঙ্গত, এদিন দেশের প্রায় ৬ কোট মানুষ ভোট দেবেন। এখন পর্যন্ত সারা দেশে মোট ৬৩.৩ শতাংশ ভোট পড়েছে। ভোট দেওয়ার নিরিখে এখনও পর্যন্ত সবচেয়ে এগিয়ে রয়েথছে পশ্চিমবঙ্গ।