ক্ষমা চাইতে হবে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়কে, এমনই জানাল সুপ্রিম কোর্ট। বিজেপির নারী মোর্চার সদস্য প্রিয়ঙ্কা শর্মাকে মমতা বন্দ্যোপাধ্য়েয়ের বিকৃত ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ারের ভিত্তিতে গ্রেপতারক করেছিল পুলিশ। সেই জল বহুদূর গড়ায়। অবশেষে সেই ব্যাপারে  হস্তক্ষেপ করল সুপ্রিম কোর্ট।

হাওড়ার দাশনগরের বাসিন্দা, মহিলা মোর্চার মুখ্য আহ্বায়ক প্রিয়ঙ্কা শর্মাকে গত বুধবার  তৃণমূলের প্রাক্তন কাউন্সিলার বিভাস হাজরার এফআইআর-এর ভিত্তিকে গ্রেফতার করে পুলিশ। অভিযোগ তিনি প্রিয়ঙ্কা চোপড়ার নিউইয়র্ক গালার ভাইরাল হওয়া ছবিতে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মুখ বসিয়েছেন।  ভারতীয় জনতা যুব মোর্চার হাওড়া সদরের সহ-সভাপতি আনন্দ রাই তখন বলেছিলেন এমন কিছুই করেননি প্রিয়ঙ্কা। তাঁকে ফাঁসানো হয়েছে রাজনৈতিক কারণেই। বৃহত্তর আন্দোলনে যাবার হুমকিও দিয়েছেন তাঁরা। তখন আদালত তাঁকে ১৪ দিনের জেল হেফাজতে রাখার নির্দেশ দেয়।

তখনই সুপ্রিম কোর্টে গিয়েছিল তাঁর দল। সুপ্রিম কোর্ট এদিন তাঁকে শর্তসাপেক্ষ জামিন দেয়। জানানো হয় তাকে ক্ষমা চাইতে হবে লিখিত ভাবে।

এই ঘটনাকে নৈতিক জয় বলে মনে করছে রাজ্য বিজেপি। এ রাজ্যে মুখ্যমন্ত্রীকে নিয়ে কার্টুন শেয়ার নিয়ে অতীতে কম জলঘোলা হয়নি। তবে এখন আবহ অন্য। ভোটকে নজরে রেখেই প্রতিটি পদক্ষেপ নিচ্ছে রাজনৈতিক দলগুলি। এই মুহূর্তে সুপ্রিম কোর্টের রায় অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করছে রাজনৈতিক মহল।