গোটা দেশ জুড়ে চড়ছে উত্তেজনার পারদ। ভোট সপ্তমী বলে কথা। রাজনৈতিক দলগুলি তো রয়েছেই, ভোটের উত্তাপ গিয়ে পড়ছে সরাসরি সাধারণ মানুষের গায়ে। তার সঙ্গে রয়েছে তাপপ্রবাহের ভয় । কেননা আবহাওয়া দফতর বলেই দিয়েছিল ১৫ মে এর পর থেকে ফের রুদ্রমূর্তি নেবে প্রকৃতি। রাজ্য জুড়ে শুরু হবে তাপপ্রবাহ। 

তবে ভোটযজ্ঞ শুরু হওয়ার ২৪ ঘণ্টা আগে সম্পূর্ণ অন্য বার্তা দিল হাওয়া অফিস। আবহ দফতরের বক্তব্য সত্যি হলে নির্বিঘ্নে ভোট দিতে কোনও সমস্যা হবে না রাজ্যবাসীর।

এদিন কেন্দ্রীয় আবহাওয়া দফতর থেকে জানান হয়েছে ভোটে কলকাতা লাগোয়া অঞ্চলে তাপমাত্রা ৩৭-৩৮ ডিগ্রি সেলসিয়াসের কাছাকাছি থাকবে। এবং সবচেয়ে বড় কথা, বিকেলের দিকে গাঙ্গেয় পশ্চিমবঙ্গে বৃষ্টি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। 

কিন্তু কেন হঠাৎ সদয় হল প্রকৃতি। আবহবিদরা বলছেন ফনী চলে যাওয়ার ফলে বঙ্গোপসাগরে উচ্চচাপবলয় তৈরি হয়েছে সেখান থেকে জলীয় বাষ্প ঢুকে বাতাসকে আর্দ্র করে দিচ্ছে। এই আর্দ্রতা সারাদিন ঘাম ঝড়ালেও সন্ধেয় দুই চব্বিশ পরগণা-সহ গোটা গাঙ্গেয় উপত্যকায় বাসিন্দাদের স্বস্তি দিচ্ছে। সেই কারণেই ভোটের দিন চিন্তা অপেক্ষাকৃত কম।  

আবহবিদরা দেখাচ্ছেন ভোটের দিন এমন আহাওয়া সচরাচর আসে না। গত লোকসভা ভোটে ভোটের দিন তাপপ্রবাহ চলেছিল শহরে। তাপমাত্রা ছিল স্বাভাবিকের থেকে ছয় ডিগ্রি বেশি, ৪১.৪ ডিগ্রি।

আবহদফতরের নির্দেশ মেনে এ বছর তাই অপেক্ষাকৃত কম গরমে ভোট দেওয়া যাবে।  তবে কাজটা সকাল সকাল সলেরে ফেলাই ভাল।